২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার, ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যাবে নাঃ শিক্ষামন্ত্রী

দৈনিক বিদ্যালয় | নিজস্ব প্রতিনিধি |

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, এম পি সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনা ভাইরাসের পরিবেশ অনুকূলে এলেই সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার কথা চিন্তা করবে।’

শিক্ষা মন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, “এই করো না পরিস্থিতির মধ্যেও শেখ হাসিনার তৈরি ডিজিটাল বাংলাদেশে আমাদের শিক্ষার্থীদের আমরা অনলাইন শিক্ষার আওতায় রাখতে পেরেছি। সামান্য কিছু সংখ্যক যথা ৮-১০ ভাগ শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে হয়ত সেটি সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, আমরা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদেরকে পুরোটাই টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান করাতে সক্ষম হচ্ছি।

পৃথিবীর অনেক দেশে করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ায় বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীতে আবার বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। দীপু মনি বলেন, আমরা এই বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী জীবন নিয়ে ঝুঁকি নিতে পারিনা।

তিনি বলেন, পয়লা এপ্রিল থেকে এস এস সি পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলে তা আমাদেরকে বন্ধ করে দিতে হয়েছিল। এস এস সি পরীক্ষার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১৪ লক্ষ। এর সাথে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী, শিক্ষক, অভিভাবক সকলেই সংশ্লিষ্ট এবং তারা গণ পরিবহনে যাতায়াত করবে।

“এই বিপুলসংখ্যক মানুষের এবং তাদের পরিবারের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে একটা পরীক্ষার সুযোগ পাইলেই আমরা করে ফেলতে পারি না!”

তিনি আরো বলেন, অনুকুল পরিবেশ হলেই তথা করোনা সংক্রমণ কমে আসলে ১৫ দিনের মধ্যে এস এস সি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তবে এখান থেকে ১৫ দিনের মধ্যে বিদ্যালয় খোলার সম্ভাবনা নেই।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জানেন, দেশের এই করোনা পরিস্থিতিতে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব নয়। এই পরিস্থিতি আপনারা সবাই অবহিত। প্রায় ১৪ লাখ এইচএসসি পরীক্ষার্থী। পরীক্ষা নেওয়ার জন্য আমরা প্রস্তুত ছিলাম, এখনো প্রস্তুতি আছে। ১৪ লাখ পরীক্ষার্থীর সঙ্গে আরো কয়েক লাখ লোকবল জড়িত। এত সংখ্যক মানুষকে আমরা ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারি না।’

ডা. দীপু মনি বলেন, ‘অনুকূল পরিবেশ তৈরি হলে তার থেকে ১৫ দিনের মধ্যে এস এস সি পরীক্ষা নেওয়া হবে। যাতে পরীক্ষার্থীরাও প্রস্তুতি নিতে পারে।’

উল্লেখ্য, এসময় শিক্ষামন্ত্রীর সাথে সাংবাদিকদের প্রশ্নোত্তর কালীন সময়ে আরো উপস্থিত ছিলেন মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

পরিপত্র, প্রজ্ঞাপন, গেজেট, অফিস আদেশ, আইন, বিধি, অধ্যাদেশ কী?

(ডি বি আর আর)

ফেসবুকে লাইক দিন