২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, বুধবার, ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

উল্লেখ্যঃ যেসকল সরকারি কর্মচারী এক পদে ১০ বছর চাকরি করার পর একবারও পদোন্নতি পাননি, তাদের ক্ষেত্রে উচ্চতর গ্রেড দেয়ার ক্ষেত্রে গত ১৬ আগস্ট অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের মতামত চেয়ে চিঠি দেয় হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়। এর প্রেক্ষিতে অর্থ বিভাগ গত ১৩ সেপ্টেম্বর তারিখে হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয় সরকারী কর্মচারীদের জাতীয় বেতনস্কেল ২০১৫ এর অনুচ্ছেদ ৭ (১) এর অধীনে উচ্চতর গ্রেড প্রদানের বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণে কোনো বাধা নেই। এ বিষয়ে হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে একটি পৃষ্ঠাংক ও হয়েছে ২১.০৯.২০২০ তারিখে।

জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ স্পষ্টিকরণ প্রজ্ঞাপন

জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ স্পষ্টিকরণ প্রজ্ঞাপনঃ যে প্রজ্ঞাপনটি জারি করা হয়েছিল ২৯.০৯.২০১৬ তারিখে।

গণপ্রজাতত্রী বাংলাদেশ সরকার, অর্থ মন্ত্রণালয়,অর্থ বিভাগ, বাস্তবায়ন অনুবিভাগ
বাস্তবায়না-১ শাখা।
প্রজ্ঞাপন নং-০৭,০০,০০০০.১৬১.০০.০০২.১৬ (অংশ-১)-২৩২. তারিখঃ ২৯।০৯।২০১৬ খ্রি:

পরিপত্রঃ বিষয়ঃ জাতীয় বেতনস্কেল, ২০১৫ স্পষ্টিকরণ। উপর্যুক্ত বিষয়ে জাতীয় বেতনস্কেল, ২০১৫ অনুযায়ী অবসরােত্তর ছুটিভােগীদের বেতন নির্ধারণ, সন্তোষজনক চাকরি এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির বিষয় নিমরূপভাবে স্পষ্টীকরণ করা হইলঃ

(ক) অবসরােত্তর ছুটিভােগীদের বেতন নির্ধারণ
অবসরােত্তর ছুটি (IPRI) ভােগরত কর্মচারী অবসরােত্তর ছুটিকালীন সময়ে শুধু একটি বর্ধিত বেতন (Increment) পাইবেন, যাহা কেবলমাত্র তাঁহার পেনশন নির্ধারণের ক্ষেত্রেই প্রযােজ্য হইবে।

(খ) সন্তোষজনক চাকরি এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তিঃ সন্তোষজনক চাকরির ব্যাখ্যা: সন্তোষজনক চাকরি বুঝাইতে কর্মচারিদের পদোন্নতিসহ প্রযােজ্য ক্ষেত্রে যেইভাবে সন্তোষজনক চাকরি বিদ্যমান বিধিবিধান অনুসৃত হইয়া থাকে বিবেচ্য উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্তির
ক্ষেত্রেও অনুরূপ বিধি-বিধানসহ প্রযােজ্য হইবে।
স্বয়ংক্রিয় এর ব্যাখ্যাঃ বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটি (ডিপিসি) ব্যতিরেকে প্রযােজ্যক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়ের সচিব / নিয়ােগকারী কর্তৃপক্ষ অথবা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এর অনুমােদন গ্রহণপূর্বক অফিস আদেশ জারির মাধ্যমে উচ্চতর গ্রেড প্রদানের বিষয়টি নিষ্পত্তি করিতে হইবে।

আরো পড়ুনঃ প্রেস রিলিজ : অতিশীঘ্রই প্রাথমিক শিক্ষকরা উচ্চধাপে বেতন নির্ধারণ করতে পারবেন

(গ) উচ্চতর গ্রেডের প্রাপ্যতা: (১) একই পদে কর্মরত কোন কর্মচারী দুই বা ততােধিক উচ্চতর স্কেল (টাইমস্কেল)/সিলেকশন গ্রেড (যে নামেই অভিহিত হউক) পাইয়া থাকিলে তিনি এই অনুচ্ছেদের অধীন উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্য হইবেন না।

(২) একই পদে কর্মরত কোন কর্মচারী একটিমাত্র উচ্চতর স্কেল (টাইমস্কেল)/সিলেকশন গ্রেড (যে নামেই অভিহিত হউক) পাইয়া থাকিলে উচ্চতর স্কেল (টাইমস্কেল)/সিলেকশন গ্রেড পাইবার তারিখ হইতে পরবর্তী ৬(ছয়) বছর পূর্তির পর ৭ম বছরে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্য হইবেন।

(৩) একই পদে কর্মরত কর্মচারী কোন প্রকার উচ্চতর স্কেল (টাইমস্কেল)/সিলেকশন গ্রেড (যে নামেই অভিহিত হউক) না পাইয়া থাকিলে সন্তোষজনক চাকরির শর্তে তিনি ১০(দশ) বৎসর চাকরি পূর্তিতে ১১তম বছরে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেড এবং পরবর্তী ৬ বছরে পদোন্নতি না পাইলে ৭ম বছরে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্ত হইবেন।

(৪) জাতীয় বেতনস্কেল, ২০১৫ এর ৭(১) ও ৭(২) এ প্রদত্ত সুবিধা কোন ক্রমেই ১৫/১২/২০১৫ তারিখের পূর্বে প্রদান করা যাইবে না।

(মোঃ সামীম আহসান), সহকারী সচিব, ফোনঃ ৯৫৫০৭৮১

বিতরণঃ (জ্যেষ্ঠতার ক্রমানুসারে নয়):
১।মন্ত্রিপরিষদ সচিব,মন্ত্রিপরিষদ বিভাগমুখ্য সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পুরাতন সংসদ ভবন, ঢাকা।২। বাংলাদেশের মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, অডিট হউক,/কাকরাইল সড়ক, ঢাকা। তাঁহার আওতাভুক্ত সকল অফিসে ইহার অনুলিপি প্রেরণের জন্য অনুরােধ করা হইল।

উল্লেখ্যঃ যেসকল সরকারি কর্মচারী এক পদে ১০ বছর চাকরি করার পর একবারও পদোন্নতি পাননি, তাদের ক্ষেত্রে উচ্চতর গ্রেড দেয়ার ক্ষেত্রে গত ১৬ আগস্ট অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের মতামত চেয়ে চিঠি দেয় হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়। এর প্রেক্ষিতে অর্থ বিভাগ গত ১৩ সেপ্টেম্বর তারিখে হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয় সরকারী কর্মচারীদের জাতীয় বেতনস্কেল ২০১৫ এর অনুচ্ছেদ ৭ (১) এর অধীনে উচ্চতর গ্রেড প্রদানের বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণে কোনো বাধা নেই। এ বিষয়ে হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে একটি পৃষ্ঠাংক ও হয়েছে ২১.০৯.২০২০ তারিখে।


বাপ্পি খানের গল্প : একটি বৃষ্টিভেজা রাত : ১ম পর্ব

ফেসবুকে লাইক দিন