২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, বুধবার, ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রাথমিক শিক্ষকদের পদন্নোতিতে বয়স ও পরীক্ষা পদ্ধতি থাকবে না : অচিরেই পদোন্নতি

১৩ অক্টোবর বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল জটিলতা ও বিভাগীয় পদোন্নতি বিষয় নিয়ে, অর্থ মন্ত্রণালয় ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে পৃথক পৃথক ভাবে আলোচনায় অংশ গ্রহন করি।

প্রথমে আমরা আমাদের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ২৯।০৯।২০ ইং তারিখে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত টাইমস্কেল সংক্রান্ত চিঠি নিয়ে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সত্যজিৎ কর্মকার মহোদয়ের সাথে দীর্ঘক্ষণ ধরে আলোচনা করি। আলোচনায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় কতৃক প্রেরিত ২৯ তারিখের চিঠির প্রসংগে বলেন এ বিষয়ে উভয় মন্ত্রনালয়ের মধ্যে আলোচনা হয়েছে এখনো আলোচনার পর্ব শেষ হয়ে যায় নি। আগামীতে আলোচনার সুযোগ রয়েছে।

তবে ০৯।০৩।১৪ ইং হতে প্রধান শিক্ষক পদটি পদোন্নতি হওয়ার টাইমস্কেল দেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। তখন আমরা বললাম স্যার, আমাদের বেতন গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে ঠিকই কিন্তু পদের তো কোন পরিবর্তন হয়নি! তখন উত্তরে বললেন, ওটাই পদোন্নতি। আপনাদেরকে দিলে সকল মন্ত্রণালয়ের কর্মচারিদেরকে দিতে হবে। এটা সম্ভব না, বড় জটিল কাজ।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনার পাশাপাশি আমরা আইনি প্রক্রিয়া চালিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছি তবে এটা আপনাদের মতামতের উপর নির্ভর করছে। আপনারা এ বিষয়ে মতামত দিবেন বলে আশা করছি।

২য় পর্বে আমরা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মনসুরুল আলম এর সাথে আলোচনায় বসি। অতিরিক্ত সচিব আমাদেরকে জানালেন যে, ২৯ সেপ্টেম্বর চিঠি প্রেরণ করে আলোচনাও করেছি, অন্যায় ভাবে তারা দিচ্ছেন না। আমরা আর কি করতে পারি!

এর পর আমরা প্রধান শিক্ষকদের পদোন্নতি নিয়ে কথা উঠালাম। স্যারকে গত ১০।১০।২০ তারিখের সমকাল পত্রিকার উদ্ধৃতি তুলে ধরলাম যে, স্যার আপনি গত মাসের ১৫ তারিখে আমাদের সাথে কথা দিয়েছিলেন যে, “আমাদের পদোন্নতিতে বয়সের কোন পরিসীমা ও পরীক্ষা পদ্ধতি রাখবেন না অথচ পত্রিকার সংবাদে আমরা হতাশ হয়েছি।” তখন স্যার আমাদেরকে বয়সের পরিসীমা ও পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিলের সুপারিশ দেখালেন এবং পত্রিকায় পুরাতন সংবাদ ছেপেছে বলে জানালেন। অচিরেই আপনাদের পদোন্নতি শুরু হয়ে যাবে। এ বিষয়ে আমারা পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছি।

শিক্ষকদের বেতন সমতার চিঠিও হয়ে গেছে। অল্প কিছু দিনের মধ্যে তা আপনারা পেয়ে যাবেন। বলে আশ্বাস প্রদান করেছেন।

আজকের আমাদের অর্থমন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনার বিষয়ে আমাদের রাজশাহী বিভাগের সভাপতি জনাব মোঃ আঞ্জারুল ইসলাম ও বাঘার কৃতি সন্তান, মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব জনাব, রথীন্দ্রনাথ দত্ত মহোদয়ের সার্বিক সহযোগিতায় হয়েছে। একারণে সমিতির পক্ষ থেকে রথীন স্যারের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আজকের আলোচনায় আমার সাথে ছিলেন সমিতির মহাসচিব, দেলোয়ার হোসেন।

-মোঃ বদরুল আলম মুকুল, সভাপতি, বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতি, কেন্দ্রীয় কমিটি।

প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেড প্রাপ্তির পরিপত্র

টাইমস্কেল ও দশমগ্রেড প্রশ্নে প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা দু’ভাগে বিভক্ত

সমন্বিত নিয়োগ বিধিমালা ২০২০ এ পদোন্নতির ‘প’ ও নেই : AUEO পদে সরাসরি নিয়োগ

দৈনিক বিদ্যালয় এর নিউজ খুজে পেতে dainikbidyaloy.com লিখে গুগলে সার্চ দিন।

ফেসবুকে লাইক দিন