২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, বুধবার, ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

এইচএসসি পাস ও বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি : ১৭ তারিখে জানা যাবে

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্কঃ এ পর্যন্ত বেশ কিছু পরীক্ষা বাতিল হয়েছে। সে গুলো ততবেশি আলোচনা না থাকলেও এইচ এস সি পরীক্ষা বাতিল, ফল নির্ধারণ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। এইচ এস সি পরীক্ষা বিশেষ কারণে অতিগুরুত্ব বহন করে। আর সেটি হল, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি। এইচ এইচ এস সির ফলাফল কীভাবে দেওয়া জবে সেটি নিয়ে স্বয়ং মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও বিশেষ চিন্তিত।

এখন উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের এইচ.এস.সি ও সমমানের ভর্তি পরীক্ষা বাতিলের পর থেকেই আলোচনায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা কিভাবে হবে এ নিয়ে।

এখনো এইচ এস সি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়নি; তারপরও শিক্ষার্থী, অভিভাকদের বিশেষ মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি। এ বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার আলোচনায় বসে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যবৃন্দ। এখানে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে বেশকিছু প্রস্তাব দেন তারা। ভার্চুয়াল এই বৈঠকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন অর রশিদ এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার রেজাল্টের উপর ভিত্তি করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করার মত প্রকাশ করেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, মিজানুর রহমান বলেন, উক্ত সভায় ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে অনেক আলোচনা হলেও কোনো সিদ্ধান্ত না হওয়ার কথা জানান তিনি। তিনি জানান, আগামী শনিবার ১৭ অক্টোবর এই বিষয়ে আবার আলোচনা করতে উপাচার্যদের নিয়ে আবারও বৈঠক হবে। সেখানে কোনা সিদ্ধান্ত আসলেও আসতে পারে। তিনি বলেন, শনিবারের বৈঠকে ভর্তি পরীক্ষায় এইচ এস সির গ্রেড পয়েন্ট রাখা না রাখার বিষয়ে আলোচনা হবে। এছাড়াও কীভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হবে সে বিষয়েও আলোচনা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত কয়েক বছর ধরে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফলের উপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করিয়ে আসছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সমুহ।

উক্ত নীতিনির্ধারণী ভার্চুয়াল মিটিং এর সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ এবং মিটিংটির সঞ্চালনা ছিলেন ইউজিসির সদস্য প্রফেসর দিল আফরোজা বেগম।

দৈনিক বিদ্যালয়’ এর আপডেট নিউজ পেতে সাবস্ক্রাইব করুন ও dainikbidyaloy.com লিখে গুগলে সার্চ দিন।

সাতক্ষীরা কলারোয়ায় একই পরিবারের ৪ জনকে হত্যা

সকল শিক্ষককে বিদ্যালয়ে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়নি

টাইমস্কেল ও দশমগ্রেড প্রশ্নে প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা দু’ভাগে বিভক্ত

ফেসবুকে লাইক দিন