১০ দফা দাবিতে প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির কর্মসূচি ঘোষণা

প্রাথমিক

দৈনিক বিদ্যালয় : দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের ০৯.০৩.২০১৪ তারিখ হতে ১৪.১২.২০১৫ তারিখ পর্যন্ত টাইমস্কেল প্রদানের বিষেয় অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারীকৃত ১৫.১০.২০২০ তারিখে জারিকৃত ১৪১ নং পরিপত্রটি জরুরী ভিত্তিতে প্রত্যাহার ও সহকারি শিক্ষকদের বেতন স্কেল ১০ম গ্রেডে উন্নীতকরণ সহ ১০ দফা দাবিতে ২৪ অক্টোবর শনিবার সকালে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিট মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সভাপতি ওয়েছ আহমেদ চৌধুরী, নির্বাহী সভাপতি জাহিদুর রহমান বিশ্বাস, মহা সম্পাদক আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত যে ১০ দফা দাবী-দাওয়া সমুহ উত্থাপিত হয় তা হল

১. সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের ০৯.০৩.১৪ হতে ১৪.১২.১৫ তারিখ পর্যন্ত সময়ের প্রাপ্য টাইমস্কেল প্রদানের বিষেয় অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারীকৃত ১৫.১০.২০২০ তারিখের ১৪১ নং পত্রটি জরুরী ভিত্তিতে প্রত্যাহার করে প্রশিদের টাইমস্কেল প্রদানের ব্যবস্থা করা।

২. ক. বর্তমান প্রধান শিক্ষকদের যোগ্যতা ও দায়িত্বের কথা বিবেচনা করে ৮ম গ্রেডে উন্নীত
করণ।

খ. সহকারি প্রধান শিক্ষকের দ্রুত পদ সৃষ্টি সহ তাদের ৯ম গ্রেডে বেতন স্কেল নির্ধারন করা।

গ. স্নাতক-স্নাতেকাত্তর শিক্ষাগত যোগ্যতার পরিপ্রেক্ষিতে সংগত কারেণই সহকারি শিক্ষকদের বেতনস্কেল বর্তমান বেতন স্কেলের ১০ম গ্রেডে উন্নীত করণ।

৩. চলিত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের দ্রুত পদোন্নিতর ব্যবস্থা করণ।

৪. সমন্বিত নিয়োগ বিধিতে সহকারি শিক্ষক পদকে এন্ট্রি পদ ধরে প্রাথমিক শিক্ষা প্রশাসেনর সর্বোচ্চ পদ পর্যন্ত পদোন্নিতর মাধ্যমে পূরণ করা।

৫. প্রাথমিক শিক্ষা সম্পর্কিত বিভাগীয় নীতিনির্ধারনী ক্ষেত্রে সাংগঠনিক
প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা।

৬. সরকারি প্রাথমিক শিক্ষকেদর অবিলম্বে নন-ভেকশনাল কর্মচারী ঘোষণা করা ও অন্যান্য সরকারি কর্মচারীদের ন্যায় সুযোগ সুবিধা প্রদান করা।

৭. দেশের সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত প্রাথমিক শিক্ষা কার্যকর করা।

৮. সরকারি প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ২দিন সরকারি ছুটি ঘোষণা করা ও দিনে সর্বোচ্চ ৪টির বেশি নয় পিরিয়ড পাঠদানের ব্যবস্থা করা ।

READ MORE  বিষয় : প্রাথমিক শিক্ষকদের স্কুল ত্যাগের সময় নির্ধারণ

৯. সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির প্রতিনিধিদের নিয়ে অবিলম্বে সরকারি প্রাথমিক
বিদ্যালয় শিক্ষক কল্যান ট্রাস্টবোর্ড কার্যক্রম গতিশীল করা ।

১০. শিক্ষকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র শিক্ষকদের মধ্য থেকে প্রশিক্ষক
নির্বাচন করা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, উক্ত দাবী সমূহ বাস্তবায়িত হলে সরকারের তেমন অর্থনৈতিক সংশ্লিলষ্টতা থাকবে না সেহেতু শিক্ষা ও শিক্ষকবান্ধব সরকার প্রধান ও বঙ্গবন্ধুর সুযাগ্য কন্যা জননেত্রী, দেশরত্ন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক নেতারা উক্ত দাবী সমূহ বাস্তবায়নের জন্য  সাংগঠনিক কর্মসূচী ও ঘোষনা করেছেন যা নিম্নরুপ,

১. ১লা নভেম্বর ২০২০ বিকাল  ৪.৩০ টার সময় দেশের সকল জেলায় শিক্ষক সমােবশ অনুষ্ঠান ও প্রতিজন জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নিকট জেলা কমিটির উদ্যোগে স্মারকলিপি পেশ।

২. ১৫ নভেম্বর ২০২০ থেকে ৩০ নভেম্বর ২০২০ বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠান।

৩. ১৮ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে ঢাকায় সমাবেশ ও সমাবেশ থেকে দাবী আদায়ের পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা।

উল্লেখ্য, ১৫.১০.২০২০ তারিখে এক পরিপত্রের মাধ্যমে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের প্রাপ্য বকেয়া টাইমস্কেল প্রাপ্য হবেন না বলে এক্টি পরিপত্র জারি করে অর্থ মন্ত্রনালয়।

জানুয়ারির আগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা নেই

২৫৬৩০ প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষক ও ৬৯৪৭ শূন্যপদে প্রাথমিক শিক্ষক পদে আবেদন করবেন যেভাবে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *