২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার, ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

বদলী আটকে যাচ্ছে শিক্ষকদের

দৈনিক বিদ্যালয় : চলতি ২০২০ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলি কার্যক্রম চালু হচ্ছে না। শিক্ষক বদলী ২০২১ সালের জানুয়ারি কিংবা ফেব্রুয়ারি মাসে শুরু হতে পারে। দুর্নীতি ও ভোগান্তি কমাতে অনলাইনে এ  কার্যক্রম সম্পন্ন করার সুযোগ থাকবে বলে জানা গেছে। শিক্ষা অধিদফতের একটি সূত্র এ তথ্য জানাগেছে। চলতি নিয়মে দু’ বছর পরপর যে বদলি হওয়া যায়, চলতি ২০২০ শিক্ষাবর্ষে এসেই পুনরায় চালু হয়েছিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি কার্যক্রম, তবে তা লকডাউনের কারণে মাত্র আঠারো দিনেই বন্ধ করতে হয়েছে উক্ত কার্যক্রম।

আরওপড়ুন : প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার বিষয়ে অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বক্তব্য

জানাগেছে, লকডাউনের পর অফিস কার্যক্রম নতুন করে চালু হলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এ বছরেই অনলাইনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলি করা হবে। যার ফলে বদলি নিয়ে শিক্ষকদের আর হয়রানি বা অর্থ ব্যয় ও বদলী বাণিজ্যকারী দালালদের খপ্পরে পড়তে হবে না। এরপর থেকে কোনো রকম তদবির ছাড়া ঘরে বসেই আবেদন করে বদলি হতে পারবেন শিক্ষকরা।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, শিক্ষক বদলির জন্য যে সফটওয়্যারটি ডেভেলপ করা হয়েছে সেটিকে আরো বেশি কার্যকর করতে কিছুটা দেরি হচ্ছে এবং অনলাইনের বদলি কার্যক্রমটিকে আরো বেশি নির্ভুল করতে অধিকতর থেকে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। 

আরও পড়ুন : ১৪ নভেম্বরের পরে কী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমুহ খুলবে

ভিন্নকারণ হল, পুরনো সচিবের বিদায় ও নতুন সচিব দায়িত্ব নেয়ার জন্য কিছুটা সময় লাগছে। তবে মন্ত্রণালয় আশা করছে, নতুন দায়িত্ব নেয়া সচিব-মহাপরিচালক বদলীর কাজটিকে দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাবেন। 

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, আমি দায়িত্ব নেয়ার পর বিষয়টিতে চোখ বুলিয়েছি। আশাকরি এই সপ্তাহেই আমরা একটি সিদ্ধান্তে আসবো। 

অনলাইনে বদলিতে প্রতিবন্ধী, গুরুতর অসুস্থ ও বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে এমন কিংবা বিধবা নারী, স্বামী বা স্ত্রী বা সন্তান দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত শিক্ষকদের জন্য আরো সহজ করতে

জাতীয় শিক্ষা পদক ২০১৯ প্রাপ্ত হলেন যারা (ছবি ও নাম, ঠিকানা সহ)

বদলী সফটওয়্যারটিকে উন্নতর করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এসব শিক্ষকদেরকে প্রাধান্য দিতেই সফটওয়্যারটিকে আরো কিছু কমান্ড দেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। সফটওয়ারটি আবার কয়েকবার ট্রায়াল দিয়ে নির্ভুলতা পরিমাপ করেই বদলি চালু করা হবে।

উল্লেখ্য, চলতি বছর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বদলি কার্যক্রম জানুয়ারিতে শুরু হয়ে চলে ৩১ মার্চ পর্যন্ত। এই বদলি নিয়ে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠে থাকে, সেকারণেই ২০২০ সাল থেকে অনলাইনে প্রাথমিক শিক্ষক বদলি কার্যক্রম চালু করতে কাজ শুরু করে মন্ত্রণালয় ও দায়িত্বে থাকা সাবেক সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন।

ডিবি আর.আর।

ফেসবুকে লাইক দিন