১৭ই অক্টোবর, ২০২১ ইং, রবিবার, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সারাদেশে এসএসসি পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ শুক্রবার

ফাইল ফটো

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক : করোনা কালীন সময়ে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ও শিক্ষার্থীরা ক্লাস না করতে পারায় ২০২১ সালের এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠানের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। তারা ‘করোনার মধ্যে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা নয়’ এই দাবিতে আগামী শুক্রবার ১৩ নভেম্বর সারাদেশে পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে এ কর্মসূচি পালন করবে। এবিষয়ে পরীক্ষার্থীরা ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে ভার্চুয়ালি একমত পোষণ করছে।

আরও পড়ুন: যা পড়লে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে আপনার চাকুরী হতে পারে

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিরাজগঞ্জ রোড চৌরাস্তা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ফেসবুকের একটি গ্রুপের এডমিন, তানভীর আহমেদ হৃদয়। হৃদয় বলেন, করোনার মধ্যে এস.এস.সি ও দাখিল পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আগামী শুক্রবার ১২ নভেম্বর সারাদেশে আমরা শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করব। রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় আমরা এ কর্মসূচির উদ্বোধন করব।

তানভীর আহমেদ হৃদয় বলেন, আমরা এই পরিস্থিতিতে পরীক্ষা দিতে চাই না। করোনার ভয় যতদিন থাকবে ততদিন আমাদের এই একটাই দাবি থাকবে। এরপরও যদি আমাদের পরীক্ষা নিতেই হয়; তাহলে যেন নবম শ্রেণিতে আমাদের যে সিলেবাস ছিল তার উপরেই আমাদের প্রশ্ন করা হয়। কারণ হিসাবে তিনি বলেন, ‘আমরা দশম শ্রেণিতে কোন ক্লাস পাইনি। সেহেতু সে সিলেবাসের প্রশ্ন আমাদের জন্য যথার্থ নয়।

আরও পড়ুন: মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এসাইনমেন্ট লেখার নিয়ম-কানুন

এখানে উল্লেখ্য, এর আগে গত বৃহস্পতিবার তথা ০৫ নভেম্বরে একই দাবিতে রাজধানী সহ দেশের একাধিক জেলায় একই দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। যে কর্মসূচি থেকে এস এস সি পরীক্ষার্থীরা ৬টি লিখিত দাবি জানিয়েছে।

যে দাবি সমুহ এমন ছিলঃ

১. করোনার ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত স্কুল খোলা যাবে না। ২. করোনা চলাকালীন বিদ্যালয়ে কোনো ধরনের বার্ষিক পরীক্ষা, টেস্ট পরীক্ষা, এ. এ. সি পরীক্ষা নেওয়া যাবে না। ৩. এ পর্যন্ত বিদ্যালয়ের কার্যক্রম ৮ মাস বন্ধ, তাই এস.এস.সি পরীক্ষা ও ০৮ মাস পেছাতে হবে। ৪. এছাড়া এসএসসি পরীক্ষার ০৮ মাস পেছানো হলেও সেশন জট সৃষ্টি হবে, এই সেশন জটের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ৫. উপোরোক্ত দাবি সমুহ না মেনে যদি জোরপূর্বকভাবে করোনা চলাকালীন সময়ে এস.এস.সি পরীক্ষা নেওয়া হয় এবং পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে যদি কেউ করোনা পজিটিভ হয়, তাহলে সেই ছাত্রের দায়ভার ও সরকারকে নিতে হবে। ৬. সর্বশেষ দাবী হল, এসএসসি পরীক্ষা না নেওয়া হলে পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্টের উপর ভিত্তি করে অটোপ্রমোশন দেওয়া।

আরও পড়ুন: টিউশন ফি এর বিষয়ে জরুরী নির্দেশনা

জাহিদ আহমেদ নামক আরও একজন এসএসসি পরীক্ষার্থী জানান, আমাদের জন্যে অটোপাসের ব্যবস্থা করা হোক। কারণ হিসাবে উল্লেখ করেন, আমরা শুধুমাত্র ৯ম শ্রেণিতে ক্লাস করার সুযোগ পেয়েছি। এরপর দশম শ্রেণিতে উঠার প্রথম দিকেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। এতে আমাদের পড়ালেখায় খারাপ প্রভাব পড়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন: আইবাস++ এর ফাইলটি ছাড়পত্রের অপেক্ষায় হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের টেবিলে

জাহিদ আহমেদ বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। এছাড়া অনলাইন ক্লাস থেকে অর্ধেকের বেশি শিক্ষার্থীই বঞ্চিত ছিল বলে দাবি তার। সবমিলিয়ে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার জন্য আমরা প্রস্তুতি নিতে পারিনি বলে জানান তিনি।

-ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন