১১ই এপ্রিল, ২০২১ ইং, রবিবার, ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইংল্যান্ডে করোনার মধ্যে স্কুল খোলায় শিক্ষক বিদ্রোহের আশঙ্কা

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক : ইংল্যান্ডের বিদ্যালয় গুলোর প্রধান শিক্ষকরা সরকারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। কারণ তাদের শিক্ষামূলক ইউনিয়নগুলি মনে করছে যুক্তরাজ্যে এখন তাদের শিক্ষকদের এখন স্কুলে ফিরে যাওয়ার সময় হয় নি।

বর্তমানে যুক্তরাজ্যে স্কুলগুলি আবার চালু করার পরিকল্পনা নিয়ে সরকার শিক্ষক এবং প্রধান শিক্ষকদের একটি বড় অংশ বিদ্রোহের মুখোমুখি।

উল্লেখ্য, যুক্তরাজ্যে বর্তমান পরিস্থিতিতে স্কুল খুলে তাদের এবং শিক্ষার্থীদের ‘জীবন বা মৃত্যুর’ মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষকরা৷ তবে সেদেশের সরকার এখনো পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে সকল স্কুল খুলে দেওয়ার পরিকল্পনায় অটল৷ ওই পরিকল্পনা অনুয়ায়ী ইংল্যান্ডে ১লা জুন থেকে কিছু প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়েছে৷ শিক্ষকরা এই মূহুর্তে তাদের স্কুলে কাজের পরিবেশ এবং শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন৷

শনিবার (২ জানুয়ারি) সেদেশের প্রধান শিক্ষকরা শিক্ষা বিভাগের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিয়েছেন। সেদেশের শিক্ষকরা কোভিড-১৯ ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ায় তারা আশংকা প্রকাশ করেছে।

ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অফ হেডট্যাচার্স (এনএএইচটি) এবং স্কুল অ্যান্ড কলেজের নেতৃবৃন্দ অ্যাসোসিয়েশনকে আইনজীবীদের সরকারকে চিঠি দেওয়ার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন এবং সোমবার কার্যদিবস শেষ না হওয়া পর্যন্ত এমন তথ্য এবং বৈজ্ঞানিক তথ্য ভাগ করে নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন যা প্রস্তাবিত করে যে এটি নিরাপদ স্কুল ফিরে।

এনএএইচটিও প্রধান শিক্ষকদের জন্য গাইডেন্স জারি করার পরিকল্পনা করেছে, যা সুপারিশ করবে যে তারা যে কর্মীরা ফিরতে অস্বীকার করবে তাদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ নেবে না কারণ তারা মনে করে যে এটি নিরাপদ নয়।

সেদেশের পর্যবেক্ষক আরও বুঝতে পেরেছেন যে, যুক্তরাজ্যের বৃহত্তম টিচিং ইউনিয়ন শিক্ষকদের নিরাপত্তার আশঙ্কায় সোমবার তাদের ক্লাসরুমে ফিরে না আসতে সতর্ক করার জন্য প্রস্তুত।

যুক্ত রাজ্যের জাতীয় শিক্ষা ইউনিয়ন (এনইইউ), যা যুক্তরাজ্যের বেশিরভাগ শিক্ষক এবং ৪,৫০,০০০ এর বেশি স্কুল কর্মীদের প্রতিনিধিত্ব করে, তাদের অধীনে থাকা শিক্ষকদের জানিয়ে দেবে যে ইউকেতে জানুয়ারীর মাঝামাঝি পর্যন্ত তাদের স্কুলে ফিরে আসা নিরাপদ নয়।

ইউনিয়নটি প্রত্যাশা করে যে, এর বেশিরভাগ সদস্য তার পরামর্শ মেনে চলবে এবং বেশিরভাগ স্কুল তাদের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর জন্য অনলাইনের মাধ্যমে শেখার জন্য বেশি আগ্রহী করছে।

ইউনিয়ন তার সদস্যদের তাদের প্রধান শিক্ষকদের প্রেরণের জন্য একটি চিঠি সরবরাহ করবে, সেই চিঠিতে তারা ব্যাখ্যা করবে যে তারা কর্মস্থলে যেতে অস্বীকার করছে কারণ তাদের কর্মক্ষেত্রটি অনিরাপদ, কর্ম অধিকার অধিকার আইন ১৯৯৬ এর ৪৪ অনুচ্ছেদে আইনে অন্তর্ভুক্ত এই অধিকার দিয়েছে।

ইউনিয়ন বলছে, কর্মীদের এখনও দূর থেকে কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং স্কুল প্রাঙ্গণে দুর্বল ছাত্র এবং মূল কর্মীদের বাচ্চাদের দেখাশোনা করার জন্য স্বেচ্ছাসেবীদের রাখা উচিত।

অন্যদিকে ইংল্যান্ডের প্রাথমিক বিদ্যালয় সমুহ দু’এক দিনের মধ্যেই আবার চালু হওয়ার প্রত্যাশা করছে। লন্ডনের সমস্ত স্কুল এবং দক্ষিণে অন্যান্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের যেখানে কোভিড-১৯ সংক্রমণনের হার বেশি সেগুলো বাদে এই পদক্ষেপ নিতে চলেছে।

ইংল্যান্ডে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থী শিক্ষার্থীরা ১১ ই জানুয়ারি স্কুলে ফিরে আসবে। ওয়েলসের বেশিরভাগ স্কুলও আবার খোলা হবে। এরপর এক সপ্তাহ পরে ১৮ জানুয়ারি স্কটল্যান্ডের সমস্ত বিদ্যালয়ের পাশাপাশি ইংল্যান্ডের অন্যান্য মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও স্কুলে ফিরে আসবে। সূত্র : দ্যা গার্ডিয়ান।

শিক্ষার খবর জানতে dainikbidyaloy.com বা বাংলায় ‘দৈনিক বিদ্যালয়’ লিখে সার্চ দিন। শিক্ষার প্রিয় খবর ‘দৈনিক বিদ্যালয়’ অনলাইন পত্রিকার সাথে থাকুন, শিক্ষার খবরের সাথে থাকুন।

ফেসবুকে লাইক দিন