২৬শে জুলাই, ২০২১ ইং, সোমবার, ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

শিক্ষকদের অনলাইন বদলি সফটওয়্যার ওপেন করা হল : লিংক এখানেই

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক :: শিক্ষকদের অনলাইনে বদলির সফটওয়্যার ওপেন করে দেওয়া হয়েছে। এখন থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বদলির জন্য লগইন করতে পারবেন। ইতিপূর্ব পর্যন্ত চলতে থাকা বদলিতে নানান জটিলতা থাকায় বহু শিক্ষক মারাত্মক সমস্যায় ভুগছেন। আগামি সপ্তাহ থেকে শুরু হতে যাওয়া প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলি পক্রিয়া স্বচ্ছ এবং ভোগান্তিবিহীন করার দাবি ও জানিয়েছেন শিক্ষকরা।

এবিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তর সূত্র বলছে, প্রথম ধাপে পাইলটিং হিসেবে ঢাকার পার্শ্ববর্তী দুটি উপজেলায় এই অনলাইন বদলি কার্যক্রম শুরু করা হবে এবং এই প্রক্রিয়া প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন শুভ উদ্বোধন করবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন পাইলটিং কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন গত ০৯ মার্চ করার কথা থাকলেও তা পরিবর্তন হয়।

এবিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ভাষ্য হল, শিক্ষকদের পাইলটিং কার্যক্রমে অনলাইনে আবেদনের প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রয়োজনে উদ্বোধন শিঘ্রই করা হবে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহাম্মদ মনসুরুল আলম গত ৮ই মার্চ বলেন, নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলির পাইলটিং শুরু হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, বদলি সফটওয়ারে এখন কোনও সমস্যা নেই, কারিগরি ত্রুটিও নেই। আমরা এটির অবজারভেশন করছি এবং শিক্ষকদেরও অবজারভেশন রয়েছে। আবেদন করার সঠিক প্রক্রিয়াটা জানাতে প্রশিক্ষণের প্রয়োজন আছে এজন্য নতুন একটি সফটওয়ার আমরা চালু করবো। সে কারণে একটি প্রশিক্ষণ বা চার বা পাঁচদিন ওরিয়েন্টশন প্রয়োজন হবে। এর মধ্যেই অনলাইনে বদলির আবেদন কার্যক্রম শুরু হবে এবং আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে যেকোনও দিন উদ্বোধন করা হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষকদের হয়রানি ও বদলি কার্যক্রম দুর্নীতিমুক্ত করতে গত বছর অক্টোবর থেকে অনলাইনে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বদলি শুরু করার কথা ছিল কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে তা পিছিয়ে যায়।

উল্লেখ্য, ২০২১ সন থেকে অনলাইনে প্রাথমিক শিক্ষক বদলি শুরু করতে গত ২৪ নভেম্বর ২০২০ তারিখে শিক্ষকদের আন্তঃবদলিসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সকল ধরনের তথ্য চায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। এবং বদলি কার্যক্রম নিশ্চিত করতে ই-প্রাইমারি সিস্টেমে সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তথ্য ৩০ নভেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে তথ্য হালনাগাদ করার নির্দেশ ও দেওয়া হয়। এছাড়া অভ্যন্তরীণ ই-সেবা মডিউলের ই-প্রাইমারি সিস্টেম সফটওয়ারের মাধ্যমে সকল পুরাতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সদ্য জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের যাবতীয় তথ্যাবলী ও শিক্ষকদের ব্যক্তিগত সকল তথ্য সঠিকভাবে হালনাগাদ করতে উপজেলা শিক্ষা অফিসারদের নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

এবিষয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষিকগণ যারা বিগত সময়ে বদলিতে বিভিন্ন ধরনের হয়রানির শিকার হয়েছে বা হতে দেখেছে তারা বলছেন, অনলাইনে বদলি ব্যবস্থায় যেন দুর্নীতি হওয়ার কোন ধরনের সুযোগ না থাকে এবং সব কিছু যেন স্বচ্ছতার ভিত্তিতে হয়।

প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলির লিংকে প্রবেশ করুন :: http://180.211.137.57:8888/login

অনলাইন বদলিতে যেভাবে আবেদন করতে হবে:

প্রাথমিক শিক্ষকদের তাঁদের ই-প্রাইমারি সিস্টেমের শিক্ষক পিন ব্যবহার করে OTP Authentication এর মাধ্যমে লগইন করে নিজস্ব UI বা User Interface এ প্রবেশ করে বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে শিক্ষকদের এবং বিদ্যালয়ের তথ্যাদি পূর্ব থেকেই ডাটাবেইজে সংরক্ষিত থাকায় শুধুমাত্র বদলির ক্ষেত্র বা (আন্ত:উপজেলা, আন্ত:উপজেলা, আন্ত:জেলা, আন্ত:বিভাগ ও অন্ত:সিটি কর্পোরেশন) এবং এছাড়া বদলির কারণ নির্বাচন করে বদলির আবেদন করতে পারবেন।

অনলাইন বদলিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের মাসিক রিটার্ণ, সার্ভিসবুকের ফটোকপি ইত্যাদি সংযুক্ত করার প্রয়োজন নেই। তবে ক্ষেত্রমতে স্বামী বা স্ত্রীর কর্মস্থলের বা স্থায়ী ঠিকানার প্রমাণপত্র, বদলির কারণ কিংবা প্রেক্ষাপটের আলোকে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র সংযুক্ত করতে হতে পারে।

জানাগেছে, বিদ্যমান বদলির নীতিমালার শর্তাবলীর আলোকে backend এর লজিক বা যুক্তিগুলো এমনভাবে সেট করা হয়েছে যেন অযাচিত কিংবা বদলির শর্তপূরণ করে না এমন কোন শিক্ষক আবেদন করতে না পারে।

এছাড়া এই সফটওয়্যারে শিক্ষক শুণ্যপদের সকল তথ্য ডাটাবেইজে থাকায় শিক্ষকগণ আবেদনের সময়ই ভ্যাকান্সি থাকা সকল শুণ্যপদ দেখতে পাবেন এবং এক বা একাধিক বিদ্যালয় বাছাই করে বদলির আবেদন ও করতে পারবেন।

অনলাইনে বদলিতে সঠিকভাবে আবেদন সাবমিট করলে আবেদনকারী আবেদনের একটি পিডিএফ কপি এবং Application Tracking No সংবলিত সিস্টেম জেনারেটেড একটি রিসিপ্ট পাবেন এবং বদলি আবেদন মোবাইলে নোটিফিকেশন প্রেরণ করা হবে। এই বদলিতে শিক্ষক পিন ব্যবহার করে লগইন করে যেকোন সময় তাঁর ড্যাশবোর্ড থেকে আবেদনের বর্তমান অবস্থান ও জানতে পারবেন।

এই বদলি সফটওয়্যারে প্রতিটি ধাপে সময় নির্ধারণ করা থাকবে ফলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আবেদনটি অগ্রগতি হতে থাকবে। কোন ধাপে অতিরিক্ত সময় লাগার কোন সুযোগ নেই।

আবেদনকারীর বদলির প্রেক্ষাপটের আলোকে সিস্টেম হতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্কোর নির্ধারিত হবে। যার ফলে একই বিদ্যালয়ে আবেদনকারী একের হলে অগ্রাধিকার তালিকাও সিস্টেম থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তৈরি হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, এই অনলাইন সিস্টেমে বদলির ফলে একদিকে যেমন স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে অন্যদিকে অযাচিত তদবিরের ও চাপ হ্রাস পাবে। দিন শেষ হবে বদলি বাণিজ্যে জড়িতদের।

আরও পড়ুন : শিক্ষকরা যাদের সুযোগ আছে ট্রেনিং স্কেল না নিয়ে সরাসরি ১৩ তম গ্রেডে বেতন নিতে পারেন

৩১ মার্চের মধ্যে আবার ইএফটিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের যেসকল তথ্য চাওয়া হয়েছে

ইএফটিতে শিক্ষকদের বেতন সম্পর্কিত জরুরি নির্দেশনা

-ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন