১৭ই অক্টোবর, ২০২১ ইং, রবিবার, ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হেফাজতের কমিটি বিলুপ্ত : কওমি মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষক রাজনীতি নিষিদ্ধ

হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী, নুরুল ইসলাম জিহাদি ও মাওলানা মামুনুল হক

হেফাজতের বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক :: হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেছেন আমিরে হেফাজত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। 

২৫ এপ্রিল, রোববার রাত ১১টার ফেসবুক লাইভে এসে এ ঘোষণা দেন বাবুনগরী। 

জোনায়েদ বাবুনগরী বলেন, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সবচেয়ে বড় অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতের ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতাদের পরামর্শক্রমে বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হল। আগামীতে পূনরায় আহ্বায়ক কমিটির মাধমে আবার হেফাজতে ইসলামের কার্যক্রম শুরু হবে, ইনশাআল্লাহ।  

এখানে উল্লেখ্য, গত ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। যে বিক্ষোভগুলো সহিংসতায় রূপ নেয়। সেই সহিংসতায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহ বিভিন্ন স্থানে প্রাণ যায় অন্তত ১৮ জন।

এছাড়া হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে পরবর্তীতে আটক হলে নতুন করে বিতর্কের মুখে পড়ে হেফাজত। 

সবশেষে ভিভিন্ন কারণে আজ লাইভে এসে নুরুল ইসলাম জিহাদি ও আল্লামা জোনায়েদ বাবুনগরী সমর্থিত হেফাজতে ইসলাম নামক সংগঠনটির বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করল বাবুনগরীর ঘোষণায়।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। আল্লামা শাহ আহমদ শফীর হাতেগড়া সংগঠনটির জন্মলগ্ন থেকে আমির ছিলেন তিনি। মহাসচিব ছিলেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

কওমি মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকদের রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা

এছাড়া ২৫ এপ্রিল, রবিবার কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী বোর্ড ‘আল-হাইআতুল উলয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশে’ র স্থায়ী কমিটির এক সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। নীতি নির্ধারনী এই বোর্ডের অফিস সম্পাদক মু. অছিউর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এমন তথ্য জানানো হয়েছে।

উক্ত বিবৃতিতে, দেশের আলেম-ওলামা, মাদরাসার ছাত্র ও ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের হয়রানি না করার জন্য ও সরকারের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সেই সভায় সিদ্ধান্ত হয়, দেশের কওমি মাদরাসা সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে ’আল-হাইআতুল উলয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’।

সভায় এই বোর্ডের অধীন এক বা একাধিক বোর্ড কিংবা কোনো সংগঠন বা ব্যক্তি আল-হাইআতুল উলয়ার সিদ্ধান্তের বাহিরে পৃথকভাবে কওমি মাদরাসা বিষয়ক কোনো সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ বা উদ্যোগ নিতে পারবে না বলে ও জানানো হয়েছে।

ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন