১৪ই মে, ২০২১ ইং, শুক্রবার, ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করতে যেয়ে করোনায় প্রাণ হারালো ৭০০ শিক্ষক

উনি কল্যাণী অগ্রহরি, যিনি আট মাসের গর্ভবতী ছিলেন। উনি একজন শিক্ষক। যিনি সেদেশের পঞ্চায়েত নির্বাচনের ডিউটির প্রায় ১০ দিন পরে কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন।

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক : : উত্তরপ্রদেশের শিক্ষকদের একটি সংগঠন ৩০ এপ্রিল, শুক্রবার জানিয়েছে যে, আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের প্রদেশগুলোতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় ৭০০ এর অধিক শিক্ষক।

এখানে উল্লেখ্য, চলতি বছরের এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শরু হওয়া প্রদেশ সমুহের এ নির্বাচন শেষ হয় গত ২৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার।

এর মধ্যে একজন শিক্ষকের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ্য, উনি কল্যাণী অগ্রহরি, যিনি আট মাসের গর্ভবতী ছিলেন। শিক্ষক যিনি সেদেশের পঞ্চায়েত নির্বাচনের ডিউটির প্রায় ১০ দিন পরে কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন। থাম্বনেইলে তার ফটো ও তার আবেদন এর ছবি দেওয়া হয়েছে। উক্ত শিক্ষিকার স্বামী তাকে নির্বাচনের ডিউটি থেকে অব্যবহিত চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে অব্যবহিত দেওয়া হয়নি।

চলতি সময়ে করোনায় বিপর্যস্ত ভারতের রাজ্যগুলোর মধ্যে উত্তরপ্রদেশ অন্যতম। জানা গেছে ২রা এপ্রিল রবিবার থেকে নির্বাচনে ভোট গ্রহণকৃত প্রদেশ সমুহে শুরু হবে ভোট গণনা। সেই উত্তরপ্রদেশে এই অবস্থায় মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষকদের সংগঠন ভোট গণনা পিছিয়ে দেয়ার জোর দাবি ও জানিয়েছেন।
 
শিক্ষকদের সংগঠনটির মুখপাত্র ড. আর পি মিশরা সাংবাদিকদের যে তথ্যটি জানিয়েছেন তা হলো, শিক্ষকরা নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করতে যেয়ে ইতিমধ্যে ৭০০ শতজনের অধিক প্রাণ হারিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, এই মূহুর্তে ভোট গণনা করতে গেলে একই অবস্থার পূণরাবৃত্তি ঘটবে।
 
জানাগেছে, ভারতে কমপক্ষে ১৫ হাজার শিক্ষক মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের নির্বাচনে স্ব-স্ব দায়িত্ব পালন করছেন। যার মধ্যে বেশির ভাগ শিক্ষকই গ্রামে দায়িত্ব পালন করেছেন। যেখানে ন্যুনতম স্বাস্থ্যসেবার বালাই নাকি নেই!

উল্লেখ্য, গত ৩০ এপ্রিল ২০২১ তারিখ শুক্রবারে ভারতে ৩ লক্ষ ৮৬ হাজারের অধিক মানুষ নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। যা পৃথিবীর এর আগের সকল রেকর্ড ভেঙ্গেছে। এর মধ্যে মারা গেছে ৩ হাজার ৫০০ জন। এই মূহুর্তে তাদের এই নির্বাচনের গণনা কতটা যৌক্তিক তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিশ্ব মিডিয়া সহ নেটিজেনরা।

বিডিশিক্ষা/এফএ

ফেসবুকে লাইক দিন