২০শে জুন, ২০২১ ইং, রবিবার, ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

প্রধান শিক্ষিকাকে মারধর করা রাকিবের চাকুরীর পরিনতি

ডিবি ডেস্ক :: ঘটণাটি বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার বারইহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।

প্রধান শিক্ষককে মারধর করা সেই দপ্তরি রাকিবের আউটসোর্সিং নিয়োগের চুক্তি বাতিল করল সেই স্কুলের স্কুল ম্যানেজিং কমিটি-এস.এম.সি। যার ফলে এ ঘটনায় চাকরী হারিয়েছে অভিযুক্ত দপ্তরী।

আরও পড়ুন : প্রকাশ্যে প্রধান শিক্ষিকাকে মারধর করল দপ্তরি : আটক দপ্তরি

মাধ্যমিক ও কলেজ শিক্ষার্থীদের তথ্যছক পূরণ সম্পর্কিত নতুন নির্দেশনা

প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ খুলে দেওয়ার তারিখ ঘোষণা

চাকুরীজীবীদের মাতৃত্বকালীন ছুটির বিশেষ সুবিধা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

ঘটনাটি ২৭ মে বৃহস্পতিবারের ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার বারইহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নীলুফা খানম বিদ্যালয়ের দপ্তরী রাকিবকে বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ পরিস্কার করার কথা বলেন। চলতি ছুটিকালীন সময়ে সে কাজ করতে পারবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয় রাকিব। ঘটনার শিকার প্রধান শিক্ষকের সাথে বিতণ্ডার এক পর্যায়ে ভাইকে সাথে নিয়ে প্রধান শিক্ষককে এলোপাথাড়ি আঘাত করে। মাথায় ঘুষি মারে রাকিব। যা যমুনা টিভির এক ভয়েস কল থেকে কান্না জড়িত কন্ঠের বিবরণ সবাই শুনেছে।

উক্ত ঘটনাটি মূহুর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি নিয়ে নিন্দার ঝড় বয়ে যায় নেটিজেনদের মধ্যে।

এরপর বিষয়টি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নজরে আসলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠন এবং প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপে গতরাত আড়াইটার দিকে পাগলা থানার ওসির নেতৃত্বে অভিযুক্ত দপ্তরীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

উক্ত ঘটনায় গঠিত হয় তদন্ত টিম। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, মহাপরিচালক ও বিভাগীয় উপ পরিচালকের নির্দেশে, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের ত্বত্তাবধানে,সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হারুন-অর-রশিদ নেতৃত্বে সেই উপজেলা শিক্ষা অফিসার, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার, ম্যানেজিং কমিটি ও সংশ্লিষ্ট প্রধান শিক্ষকের পৃথক তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে তাঁর সাথে সম্পাদিত চুক্তি বাতিল করে এসএমসি। এর আউট সোর্সিং এ দপ্তরির চাকুরী করা অভিযুক্ত রাকিব চাকুরী থেকে স্থায়ী অব্যহতি পেলেন।

এই দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করায় ও উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি ছিল দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সহ সচেতন মহলের।

এতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করছে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি বদরুল আলমসহ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

-ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন