২৩শে অক্টোবর, ২০২১ ইং, শনিবার, ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জাল শিক্ষক নিবন্ধন সনদে চাকরিজীবিদের হুশিয়ারি বার্তা

জাল সনদ : এনটিআরসিএ

আবু বক্কর সিদ্দিক :: বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ- এনটিআরসিএ নিবন্ধনধারী শিক্ষকগণের নিবন্ধন সনদ যাচাই পদ্ধতি সহজিকরণ এবং দ্রুত যাচাই প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য ইমেইলে শিক্ষকদের নিবন্ধন সনদ এবং নিয়োগপত্রের তথ্য আহ্বান করেছে। ২১ জুন, ২০২১ খ্রি: সহকারী পরিচালক ফিরোজ আহমেদ স্বাক্ষরিত একটি নোটিশে এনটিআরসিএর পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

নোটিশে বলা হয় এনটিআরসিএর সেবাসমূহ সহজিকরণের অংশ হিসেবে নিবন্ধনধারী শিক্ষকগণের নিবন্ধন সনদ যাচাইয়ের আবেদন অনলাইনে গ্রহণ এবং যাচাই প্রতিবেদনগুলো প্রকাশ করা হবে। এক্ষেত্রে নোটিশে চারটি(৪) পদ্ধতি অনুসরণের কথা উল্লেখ করা হয়।

এতে বলা হয়, যে সকল প্রতিষ্ঠান শিক্ষকের নিবন্ধন সনদ যাচাইয়ে ইচ্ছুক তারা [email protected] ইমেইল ঠিকানায় শিক্ষকের নিবন্ধন সনদ এবং নিয়োগপত্র প্রতিষ্ঠান প্রধান কর্তৃক সত্যায়িত করে 300 dpi রেজুলেশনে স্ক্যান করে pdf কপি আকারে প্রতিষ্ঠান প্রধানের ফরোয়ার্ডিং সহ প্রেরণ করতে হবে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠান যে ইমেইল ঠিকানায় যাচাই প্রতিবেদনটি পেতে ইচ্ছুক তা ইমেইলের ফরোয়ার্ডিং পত্রে উল্লেখ করতে বলা হয়েছে। তাছাড়া যাচাই প্রতিবেদনটি এনটিআরসিএর ওয়েবসাইট www.ntrca.gov.bd থেকেও ডাউনলোড এবং প্রিন্ট করা যাবে।

নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়, ইমেইলে এরূপ আবেদনের জন্য কোনো ফি প্রদানের প্রয়োজন নেই।

আগামী ১লা জুলাই-২০২১ খ্রি থেকে এই আদেশটি কার্যকর হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়। উল্লেখ্য, পূর্বে সনদ যাচাইয়ের তথ্য ডাক/কুরিয়ার বা সহস্তে এনটিআরসিএ বরাবর প্রেরণ করতে হতো।

এ সম্পর্কে এনটিআরসিএর কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানানো হয়, এনটিআরসিএ দ্রুত সময়ে সেবা প্রদান এবং সহজে তথ্য প্রেরণে এরূপ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২০১৫ সালে এনটিআরসিএর অধীন শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম চালু হবার আগে কমিটি/গভর্নিং বডি দ্বারা শিক্ষক-প্রভাষক নিয়োগ দেওয়া হতো। তাতে সনদ জালিয়াতির সহজ সুযোগ থাকায় অনেকে জাল নিবন্ধন সনদ দ্বারা নিয়োগ লাভ করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে এ ব্যাপারে একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে সনদ যাচাই কার্যক্রম জোরদার করা হয়।

উল্লেখ্য, সনদ যাচাই কার্যক্রমের অংশ হিসেবে গত ২৪ মে, ২০২০ খ্রিঃ বিশ্বজিৎ সমদ্দার নামের একজন শিক্ষকের জাল সনদের একটি যাচাই প্রতিবেদন এনটিআরসিএর নোটিশে প্রকাশ করা হয়। ০২ নভেম্বর সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার পাতাখালি ফাযিল(ডিগ্রি) মাদরাসার অধ্যক্ষের লিখিত সনদ যাচাই আবেদন সাপেক্ষে জনাব বিশ্বজিৎ সমদ্দারের নিবন্ধন সনদটি যাচাই করা হলে তার রেজিস্ট্রেশন নাম্বার অনুযায়ী অন্য একজনের নাম-ঠিকানার তথ্য পাওয়া যায়।

এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষ মনে করছেন দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকদের মধ্যে সন্দেহজনক বা প্রয়োজনে সকল শিক্ষক-প্রভাষকের নিবন্ধন সনদ গুলোর তথ্য দিয়ে যদি তাদের সহযোগিতা করেন তাহলে তারা সনদ যাচাই কার্যক্রমের মাধ্যমে জাল নিবন্ধন সনদধারীদের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারবেন।

ডিবি এবিএস।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন