২২শে অক্টোবর, ২০২১ ইং, শুক্রবার, ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সুপার নিউমারারি’ পদোন্নতি চান প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকরা : সুপার নিউমারারি কী?

সুপার নিউমারারি পদ্ধতিতে প্রমোশন

নিজস্ব প্রতিবেদক : : প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা ‘সুপার নিউমারারি’ পদোন্নতি চান। এমনটা দাবি করে আবেদন করেছেন বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি (রেজি. নং এস ১২৬৮) এর সিনিয়র সহ-সভাপতি রাজেশ মজুমদার। আবেদনটি তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা পরিচালক বরাবর করেছেন।

তিনি সেই আবেদনে যুক্তি দেখিয়েছেন; পদোন্নতির যোগ্য সহকারী শিক্ষকদের বেশিরভাগ সমগ্র চাকরি জীবনে পদোন্নতির সুযোগ নেই। সেহেতু সহকারী শিক্ষকদের পক্ষে ‘সুপার নিউমারারি’ পদোন্নতি চেয়ে আবেদন করেছেন বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি।

তিনি ২৪ জুন, বৃহস্পতিবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক বরাবর লিখিত আবেদন জানান।

সেই লিখিত আবেদনে বলা হয়, দেশের পদোন্নতি পাওয়ার যোগ্য প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকরা পদোন্নতি বঞ্চিত হয়ে হতাশায় রয়েছেন। সারাদেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ লাখ ৫২ হাজারের বেশি সহকারী শিক্ষক বর্তমানে কর্মরত আছেন। প্রতিটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেহেতু মাত্র একটি প্রধান শিক্ষকের পদ। সেজন্য পদোন্নতির যোগ্যতা থাকলেও পদ স্বল্পতার কারণে অধিকাংশ সহকারী শিক্ষক পদোন্নতি না পেয়ে সমগ্র কর্মজীবন একই পদে কর্মরত। এছাড়া প্রধান শিক্ষকের পদ কম আবার প্রধান শিক্ষকদের ও (ব্লক পোস্ট) হওয়ার পদোন্নতির সুযোগ নেই। যার ফলে প্রধান শিক্ষক পদে থেকে অবসর নেওয়া ছাড়া পদ শূন্য হয় না।

রাজেশ মজুমদারের লিখিত আবেদনে আরও বলা হয়, একদিকে প্রধান শিক্ষকের পদোন্নতি নেই, অন্যদিকে মোট প্রধান শিক্ষক পদ থেকে পদোন্নতির যোগ্য পদ আরও কম। সেজন্য পদোন্নতি বিষয়টি সমাধানের জন্য সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতির বিকল্প উপায় বের করা এখন সময়ের দাবি। এই পরিস্থিতিতে প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতি সমস্যার নিরসনে চাকরির নির্দিষ্ট সময় পর ‘সুপার নিউমারারি’ পদোন্নতি হতে পারে কার্যকরী সমাধান।

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির লিখিত আবেদনে প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালার যোগ্যতা পূরণ সাপেক্ষে প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকদের নিয়োগের সাত বছর পর প্রধান শিক্ষক পদে ‘সুপার নিউমারারি’ পদোন্নতি দিয়ে ইনসিটু পদায়নের জন্য অনুরোধ জানানো হয় লিখিত আবেদনে।

এখানে উল্লেখ্য, ২০০৯ সালের পর থেকে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের এই দীর্ঘ সময়ে আর পদোন্নতি দেওয়া হয়নি। যদিও সরকার বলছে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টি করে সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতি দেওয়া হবে।

প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেডেশন ও পদোন্নতি নিয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মতামত

নগদে যারা উপবৃত্তি বা জামা জুতার টাকা পায়নি : তাদের যা করতে হবে

৬০ হাজার ও পৌনে ৪ লাখ ভুয়া শিক্ষক : জাল সনদধারীরা এবার ধরা খাবে যেভাবে

এবারও হচ্ছে না প্রাথমিক, ইবতেদায়ী, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা : প্রমোশন দেওয়া হবে যেভাবে

এবার আসুন জেনে নেওয়া যাক সুপার নিউমারারি পদ্ধতি কীঃ

শাব্দিক অর্থে সুপার নিউমারারি হল ‘অতিমানবীয়।’ যার বিশ্লেষণ মূলক অর্থ দাঁড়ায় “সাধারণ সংখ্যা ছাড়িয়ে যাওয়া”।

একটু বিশ্লেষণ করলে বিষয়টি পরিষ্কার হতে পারে। এটি পুলিশের বিভাগে সহ বিভিন্ন বিভাগে এমন পদোন্নতি দিতে দেখা যায়। যাদেরকে সম্ভবত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার। অতিরিক্ত ডিআইজি ইত্যাদি নামে খ্যাত করা হয়।

এছাড়া পার্টটাইম ভিত্তিতে মামলার শুনানির জন্য নিযুক্ত আধিকারিক বিচারপতিকে সুপারনুমেরারি বিচারক হিসাবে গণ্য করা হয়।

জানা যায়, বাংলাদেশ পুলিশে ২০০৯ সালের সুপারনিউমারারি পুলিশ অফিসার হিসাবে ২৩০ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া হয়। এসপি মর্যাদার এসব কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দিলেও সে সময় পদ শুন্য না থাকায় পদায়ন করা সম্ভব হয়নি। যদিও তারা নিয়মিত এসপি হিসাবে সে সময় পদায়ন পাননি তবুও এসপি পদের বেতন ভোগী ছিলেন।

আশাকরি ‘সুপার নিউমারারি’ বিষয়টি এখন সকলের কাছে বোধগম্য হয়েছে।

ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন