১লা আগস্ট, ২০২১ ইং, রবিবার, ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

সহকারী ও প্রধান শিক্ষকদের দ্রুত উচ্চতর গ্রেড/টাইমস্কেল প্রদানের নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

ডিবি নিজস্ব প্রতিনিধি :: প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ন্যায় টাইমস্কেল প্রাপ্ত হচ্ছে না অনেক দিন ধরে। এটি নিয়ে শিক্ষকদের দাবী ছিল ন্যায্য বকেয়া টাইমস্কেল ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।

এটি নিয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী ও প্রধান শিক্ষক উভয়ই ভোগান্তিতে আছেন। সহকারী শিক্ষক যাদের টাইমস্কেল পাওয়ার কথা ছিল আরো ২ তিন বছর আগে, তাদেরকে এখনও টাইমস্কেল প্রদান করা হয়নি। উদাহরণ হিসাবে একজন সহকারী শিক্ষক জিয়াউর রহমান, যার চাকুরী হয় ২০০৯ সালে। হিসাব অনুযায়ী এই শিক্ষক ২০১৮ সালের শেষে টাইমস্কেল প্রাপ্ত হবেন। অথচ সেই টাইমস্কেল বা উচ্চতর গ্রেড তিনি এখনো পাননি।

এছাড়া প্রধান শিক্ষকদের ক্ষেত্রে যদিও এটি নিয়ে সমস্যা হল ২০১৫ সালের আগে টাইমস্কেল ছিল ২টি। এর পর জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ ঘোষিত হলে; প্রধান শিক্ষকদের প্রাপ্য বকেয়া টাইমস্কেল আর প্রদান করা হয় না।

এটি নিয়ে সোচ্চার হতে দেখা যায় শিক্ষকদের। বিষয়টি এতদিন ধরে দাবি করে আসলেও এবার আমলে নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

এটি নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এক সভার সিদ্ধান্ত মূলক রেজুলেশনে দেখা গেছে, ‘ উচ্চতর গ্রেড ও টাইমস্কেল প্রদানে সভায় আলোচনা হয়েছে। সেই সভায় জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী ১৫ ডিসেম্বর ২০১৫ এর পর টাইমস্কেল প্রদানের সুযোগ নেই বলে জানানো হয়।

সেই সভার আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সিদ্ধান্ত আসে যে, ”আর্থিক বিধি-বিধান অনুসরণ পূর্বক দ্রুততার সাথে উচ্চতর গ্রেড/টাইমস্কেল প্রদান নিশ্চিত করতে হবে। তবে ২০১৫ এর পূর্বের বকেয়া টাইমস্কেল সংশ্লিষ্ট বেতন স্কেল আদেশ অনুযায়ী প্রাপ্য হলে বিধি মোতাবেক প্রদান করতে হবে।

যা বাস্তবায়ন করবেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক পলিসি ও অপারেশন, বিভাগীয় উপপরিচালক সকল, ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সকল।

এবিষয়ে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতি সভাপতি মোঃ বদরুল আলম এর সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত ৩০।০৬।২১ ইং তারিখের প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক, পলিসি ও অপারেশন কতৃক জারিকৃত রেজুলেশনের ৯ নং এর বিবিধ ধারা আলোচনা অনুযায়ী আমরা ২০১৫ এর পূর্বের বকেয়া টাইমস্কেল পাবো বলে আশা করছি। গত ২৬।০৬।২১ ইং তারিখে প্রাথমিকের ১৩টি সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী, সচিব, মহাপরিচালক, ৮ বিভাগের উপপরিচালক সহ ৬৪ জেলার ডিপিইওদের সাথে শিক্ষকদের টাইমস্কেল সহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে বিস্তর আলোচনা হয়েছিলো।

তার ফলশ্রুতিতেই অধিদপ্তর থেকে গত ৩০জুন এই রেজুলেশনটি জারি করেছেন । এটা আমাদের বকেয়া টাইমস্কেল পাওয়ার বড় হাতিয়ার। ঐ মিটিংএ আমি আমাদের প্রধান শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে প্রধান শিক্ষকদের টাইমস্কেল প্রাপ্তির স্বপক্ষে জোড়ালো যুক্তি তুলে ধরেছিলাম।

তিনি আরও বলেন, আমাদের উর্ধত্তন কতৃপক্ষের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে যদি সকল সমস্যার সমাধান করা যায় তাহলে বিকল্প পথে না যাওয়াই উত্তম বলে মনে করি।

এই রেজুলেশনের ফলে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক যারা এখনো উচ্চতর গ্রেড বা টাইমস্কেল ১০ বছর পূর্তিতে এখন প্রাপ্ত হন নি। তারা দ্রুত পেয়ে যাবেন বলে আসা করছেন। এছাড়া প্রধান শিক্ষক যাদের ১৪।১২।২০১৫ এর পূর্বের টাইমস্কেল বকেয়া আছেন তারা ও দ্রুত সেই বকেয়া পাবেন বলে আশা করছেন।

আরও পড়ুনঃ ২০২১ সালের এসএসসি এইচএসসি পরীক্ষা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষার্থীদের ল্যাপটপ, মোবাইল, কম্পিউটার, ট্যাব কেনার জন্য টাকা বাড়িয়েছে সরকার

সকল সরকারি কর্মচারীদের আইবাস++ এ জিপিএফ সম্পর্কিত তথ্য আপলোড করার নির্দেশ

ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন