যে কারণে এবছর হবে না প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ

নিয়োগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ২০১৯ সালের ১৯ অক্টোবরে দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে হবে হবে করেও করোনার কারণে বন্ধ রয়েছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা।

কথাছিল বিদ্যালয় খোলার পরেই আবেদনকারীরা বসতে পারবেন চাকরির পরীক্ষায়। আসতে চলেছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। দেশে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে সরকার এই মূহুর্তেই পরীক্ষা নিতে প্রস্তুত না বলে জানা গেছে সংশ্লিষ্ট সূত্র বা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

তারা ইংগিত দিয়েছে, আগামী ২০২২ এর শুরুতে এই নিয়োগ পরীক্ষা হতে পারে। তবে তারা জানিয়েছে,  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেওয়ায় স্থগিত থাকা নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজনের সার্বিক প্রস্তুতি শুরু করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

অধিদপ্তর সূত্র মতে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়েছিলো। তবে স্কুল-কলেজ খোলার সিদ্ধান্তের পর থেকেই পরীক্ষা আয়োজনের প্রস্তুতি নিচ্ছে অধিদপ্তর। এরইমধ্যে নিয়োগ পরীক্ষার ওএমআর শিট ছাপানোর কাজ শুরু হয়েছে এবং প্রশ্নপত্র তৈরির তোরজোড় চলছে।

পরীক্ষা সংশ্লিষ্টরা বলছে, নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি নেওয়া হলেও চলতি ২০২১ সালে পরীক্ষা আয়োজনের কোন সম্ভাবনা নেই। কারণ হিসেবে তারা বলছে, অনেকগুলো বড় বড় পাবলিক পরীক্ষা আগামী নভেম্বর এবং ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হবে। যারফলে এ সময় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত করার জন্য কেন্দ্র পাওয়া যাবে না। হ্যা, তবে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি এমন নিয়ন্ত্রণে থাকলে আগামী বছরের শুরুতে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা হতে পারে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদ জানান, স্কুল-কলেজ খুলছে ঘোষণা আসার পর থেকে আমরা নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করেছি। ইতিমধ্যে পরীক্ষার ওএমআর শিট ছাপানোর কাজ শুরু হয়েছে এবং প্রশ্নপত্র তৈরির কাজও চলছে। তবে এ বছর পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে না।

READ MORE  সহকারী ও গ্রন্থাগারিক পদে নিয়োগ স্থগিত কেন : সচিবের কাছে জানতে চেয়েছে ডিজি

তিনি আরও জানান, প্রাথমিকের পিএসসি, জেএসসি, এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার মতো বড় বড় পাবলিক পরীক্ষা এই বছরে অনুষ্ঠিত হবে। যে কারণে চলতি ২০২১ এ পরীক্ষা আয়োজনের সম্ভাবনা নেই। আগামী ২২ সালের শুরুতে তথা জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি মাসের দিকে আয়োজন করা হতে পারে এই নিয়োগ পরীক্ষা।

উল্লেখ্য, প্রাথমিকের শুন্য ও প্রাক-প্রাথমিক ৩২ হাজার পদের বিপরীতে এবার ১৩ লাখের বেশি প্রার্থী আবেদন করে এই নিয়োগ আবেদনে। -ডিবি আর আর।

আরও পড়ুন: স্কুল, কলেজ কিংবা মাদ্রাসার কোনো শিক্ষককে ৬ মাসের বেশি বরখাস্ত রাখা যাবে না

প্রাথমিকে প্রত্যেক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষককে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেয়া হবে

স্কুলে প্রবেশ করতে ও প্রবেশের পরে শিক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *