২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং, মঙ্গলবার, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিষয় : প্রাথমিক শিক্ষকদের স্কুল ত্যাগের সময় নির্ধারণ

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

দৈনিক বিদ্যালয় রিপোর্ট :: ১২ সেপ্টেম্বর স্কুল-কলেজ খোলার পর সরকারি প্রাথমিকে চলছে শিখন-শেখান কার্যক্রম। প্রতিদিন ৯ টার মধ্যে বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে হচ্ছে শিক্ষকদের। এছাড়া শ্রেণি কার্যক্রম চালাতে শিক্ষকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুসরণ করতে হচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঘোষিত ১৬ নির্দেশনা।

আরও খবর: প্রাথমিকে সব ক্লাস একসাথে চলবে কবে থেকে : প্রাগশি প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য

তার ক্লাসে সবার বিয়ে হয়ে গেছে

প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও মাদ্রাসার নতুন কারিকুলামে যত পরিবর্তন

অনেক বিদ্যালয় যাদের শ্রেণি কক্ষের সংকট আছে, তাদের দুই শিফট ক্লাস নিতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রাথমিক শিক্ষকরা পড়েছেন বিপাকে। তাদের অভিযোগ হল অধিদপ্তর ঘোষিত ক্লাসরুটিনে বিদ্যালয়ের আসার সময় নির্ধারিত থাকলেও, বিদ্যালয় ত্যাগের সময় নির্ধারণ করা নেই। দেশের প্রায় ৯৫ শতাংশ বিদ্যালয়ে ১২ টায় ৫ মিনিটে শ্রেণি পাঠদান শেষ হয়ে যাচ্ছে। অথচ শিক্ষকদের বিকাল ৪ টা পর্যন্ত বিদ্যালয়ে বসে থাকতে হচ্ছে এই করোনা সংক্রমণ ভয়ের পরিস্থিতির মধ্যেও।

এই পরিস্থিতিতে, বিশেষ করে নারী শিক্ষকদের জন্য নিরাপত্তাহীনতার পরিবেশ ও সৃষ্টি হওয়ার আশংকাও থেকে যায়।

এই দীর্ঘ ৪ ঘন্টা অলস সময় শিক্ষকদের জন্য বড়ই বিরক্তিকর হয়ে উঠেছে বলে খোঁজ নিয়ে যানা গেছে।

এছাড়া শিক্ষকদের অভিযোগ হল, অনেক উপজেলায় দ্রুত ছুটি হয়ে যাচ্ছে৷ আবার কিছু উপজেলার শিক্ষকদের ৪টা পর্যন্ত বসে থাকতে হচ্ছে।

যদি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর প্রত্যেক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরকে প্রতিদিনের অনুপস্থিতি-উপস্থিতির তথ্যও পাঠাতে নির্দেশ দিয়েছে। শিক্ষকরা বলছে, এই তথ্য ছক পূরণ করতে সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট সময় লাগে। অথচ আমাদের প্রায় ৪ ঘন্টা সময় বসে থাকতে হচ্ছে!

এখানে একজন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার ভাষ্যমতে, “অধিদপ্তর থেকে আমাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। শিক্ষকরা ৯ টায় বিদ্যালয়ে আসবেন ও দুপুর দেড়টায় বিদ্যালয় ছেড়ে যাবেন। হ্যা, তবে প্রয়োজনে সময় পরিবর্তন করার সুযোগও শিক্ষা অফিসারদের দেয়া হয়েছে।” যদি তাই হয়ে থাকে, তবে শিক্ষকদের এই করোনা পরিস্থিতির মধ্যে কেন এতটা সময় স্কুলে অবস্থান করতে হবে? এমনটাই অভিযোগ শিক্ষকদের। এহেন পরিস্থিতির অবসানে স্কুল ত্যাগের সময় নির্ধারণ পূর্বক অধিদপ্তরের নির্দেশনা চায় দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। -ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন