১৭ই মে, ২০২২ ইং, মঙ্গলবার, ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

স্কুল-কলেজ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য বন্ধের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা

দৈনিক বিদ্যালয় প্রতিবেদন :: ২১ জানুয়ারি থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত করোনা সংক্রমণ রোধে দুই সপ্তাহের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করেছে সরকার। শিক্ষার্থীদের জন্য এমন পরিস্থিতিতে সশরীরে ক্লাস কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও চলবে অনলাইন পাঠদান কার্যক্রম।

শনিবার, ২২ জানুয়ারি অতিমারীর এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ১১টি নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

আরও পড়ুনঃ অর্ধেক উপস্থিতি নিয়ে চলবে যে সব অফিস

আজ থেকে আবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

১০ম গ্রেডের রায়ে শিক্ষকরা যেভাবে লাভবান হবেন : নথি সহ

এই নির্দেশনায় বলা হয়, কোভিড বিস্তার রোধে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন স্কুল ও কলেজের সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এমন আদেশ দেয়া হয়েছে।

নির্দেশনায় মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের আদেশের সূত্র উল্লেখ করে বলা হয়, উপযুক্ত বিষয় ও সূত্রের পরিপ্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবহিত করা যাচ্ছে যে, করোনাভাইরাস-এর বিস্তার রোধকল্পে নিম্নরূপ নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে মেনে সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

মাউশির নির্দেশনায় করােনা ভাইরাস জনিত রােগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রােধকল্পে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন স্কুল ও কলেজের সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যে নির্দেশনা দেওয়া হয়, তা হলঃ

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের স্মারক নং ০৪.০০.০০০০.৫১৪.১৬.০০১.২১.১৪১; তারিখ- ২১/০১/২০২২ খ্রি. উপযুক্ত বিষয় ও সূত্রের পরিপ্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবহিত করা যাচ্ছে যে, করােনা ভাইরাসজনিত রােগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রােধকল্পে নিম্নরূপ নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে মেনে সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে:

১। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ পর্যন্ত সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ থাকবে;

২। এ সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ বাস্তবতার ভিত্তিতে অনলাইন/ভার্চুয়াল প্ল্যাটফরম-এ শিখন-শেখানাে কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে;

৩। যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের কোভিড ১৯ ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম চলমান থাকবে; এ ক্ষেত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আঞ্চলিক অফিস, জেলা শিক্ষা অফিস ও উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস স্থানীয় প্রশাসন ও সিভিল সার্জনের সাথে সমন্বয় অব্যাহত রাখবে;

৪। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধকালীন শ্রেণি কক্ষ, গ্রন্থাগার, গবেষণাগারসহ প্রতিষ্ঠানের সকল বিদ্যুৎ, টেলিফোন, ইন্টারনেট, পানি এবং গ্যাস সংযােগ নিরবচ্ছিন্ন ও নিরাপদ রাখতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে;

৫। এ সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকল সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ ও সামগ্রিক নিরাপত্তার বিষয়টির প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে;

৬। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান প্রতিষ্ঠানের জরুরি প্রয়ােজনে স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনপূর্বক শিক্ষক ও কর্মচারীদের দায়িত্বে নিয়ােজিত রাখতে পারবেন;

৭। যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রবাস/ছাত্রীনিবাসে বৈধ আবাসিক শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছে তাদের সুবিধার্থে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ছাত্রাবাস/ছাত্রীনিবাসসমূহ খােলা থাকবে। তবে সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে;

৮। অধিদপ্তরের অধীন সকল দপ্তর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সকল কর্মকর্তা, শিক্ষক ও কর্মচারীর অবশ্যই টিকা সনদ গ্রহণ করতে হবে;

৯। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় যথারীতি চালু থাকবে; সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালিত হবে;

১০। জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি ক্রীড়া সমিতির আয়ােজনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চলমান ক্রীড়া প্রতিযােগিতা পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

১১। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে।

এছাড়া মাউশির আরও বলা হয়, এমতাবস্থায়, কেভিড১৯ সংক্রমণ রােধে সরকার ঘােষিত সকল স্বাস্থ্য বিধি ও অন্যান্য বিধি নিষেধ যথাযথভাবে প্রতিপালনপূর্বক পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত
উপযুক্ত নির্দেশনাসমূহ বাস্তবায়নের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরােধ করা হলাে।

মাউশির নির্দেশনাটি এখানে চাপ দিয়ে ডাউনলোড করুন

-ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন