১৭ই মে, ২০২২ ইং, মঙ্গলবার, ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কি খুলবে ২১ ফেব্রুয়ারির পরে?

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কি খুলবে ২১ ফেব্রুয়ারির পরে?

দৈনিক বিদ্যালয় প্রতিবেদন :: করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রনের কারণে দেশের সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সশরীরে ও শ্রেণিকক্ষে পাঠদান বন্ধ রয়েছে। এ সত্বেও, সশরীরে পরীক্ষা চলছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। দেশে রয়েছে জনসমাগমে বিধিনিষেধ। চলমান বিধিনিষেধ আগামী ২১ ফেব্রম্নয়ারি পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

আরও পড়ুন: সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি ও মহার্ঘ ভাতার সুপারিশ

শিক্ষক বদলীর আবেদন নেওয়া শুরু হয়েছে

অনলাইনে প্রাথমিক শিক্ষক বদলি শুরু এবার

১৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগে বিশেষ গণবিজ্ঞপ্তি : আবেদন শুরু

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানানো হয়েছে, এরপর নতুন করে আর কোনো ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করা হচ্ছে না। একারণেই ২২ ফেব্রয়ারি থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া এবং সীমিত পরিষরে ক্লাস শুরু ও পাঠদান শুরুর আশা করছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। এবিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গত ৫ ফেব্রুয়ারি ওসমানী মেডিকেল কলেজে নিয়মিত পরিদর্শনে গেলে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে যেয়ে অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, নতুন করে আর কোনো বিধি-নিষেধ আরোপের ভাবনা আর নেই।

এছাড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ফৌজিয়া জাফরীন এনডিসি জানান, চলমান বিধি নিষেধ আর বাড়বে না বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বলা হয়েছে এবং আমরাও জাতীয় করিগরি কমিটির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগোযোগ অব্যাহত রেখেছি। তিনি আরও বলেন, স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের টিকার প্রথম ডোজ শেষ হয়েছে এবং দ্বিতীয় ডোজও চলমান রয়েছে। কওমি মাদ্রাসার  শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান শুরু হয়েছে। এমন অবস্থায় ভালো সংবাদের অপেক্ষায় আছে সবাই।

সর্বপরি স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, করোনার মধ্যে স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হলেও আগামী ২২ ফেরুয়ারি থেকেই কেটে যেতে পারে সকল বিধিনিষেধ এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রথমে সীমিত আকারে সশরীরে পরীক্ষার সঙ্গে ক্লাসও আরম্ভ করা হবে। এছাড়াও এরপর শুরু হতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়মিত ক্লাস।

এখানে উল্লেখ্য, দেশের করোনার সংক্রমণ গত কিছুদিন থেকেই নিম্নমুখী। দেশে গত সপ্তাহে সংক্রমণ ৪৭ শতাংশ থেকে কমে গতকাল মঙ্গলবার ২০.০৩ শতাংশে এসেছে। তবে, হঠাৎ করেই মৃত্যুর হার ১৩ জন থেকে বেড়ে ৪৩ জনে গিয়েছে। এছাড়া যাদের সংক্রমণ হচ্ছে এবং যাদের মৃত্যু হয়েছে, তাদের অধিকাংশই টিকা নেননি বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

দেশের করোনার সংক্রমণ গত কিছুদিন থেকেই নিম্নমুখী হওয়ায় করোনার সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটিও নতুন করে বিধি নিষেধের সুপারিশ করবেন না বলে জানাগেছে। হ্যা, তবে জনগণের জন্য স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে প্রতিপালনের উপর বেশি জোর দেবেন। একারণেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতি-নির্ধারকরা ২১ ফেব্রম্নয়ারির পর নতুন করে আর ছুটি বাড়ানোর কথা ভাবছেন না। সেভাবেই প্রস্তুতি নিতে যাচ্ছে দেশের শিক্ষা সংক্রান্ত সকল মন্ত্রণালয়।

-দৈনিক বিদ্যালয় / আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন