১৭ই মে, ২০২২ ইং, মঙ্গলবার, ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

বিভিন্ন জেলায় প্রাথমিক শিক্ষক বরখাস্ত

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

দৈনিক বিদ্যালয় নিউজ : দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রমজানের ছুটি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করার অভিযোগে এপর্যন্ত কমপক্ষে ১০ সহকারী শিক্ষককে সাময়িকভাবে বহিষ্কারাদেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও কারণ দর্শানোর নোটিশ বা শোকজ করা হয়েছে দেশের অন্তত তিন ডজন শিক্ষককে।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষকদের কাছে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের শিখন ঘাটতি পূরণে গত ২৪ মার্চ শ্রেণিকক্ষে পাঠদান কার্যক্রম ২০ রমজান পর্যন্ত চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। শিক্ষকরা রমজান মাসে ছুটি হবে না, এই সিদ্ধান্তের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে এবং অনেকেই বিশেষকরে শিক্ষক নেতৃস্থানীয়রা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা মন্তব্য তুলে ধরেন। মূলত এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি বন্ধ করতেই অধিদপ্তর থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এবিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছে, রমজানের ছুটির বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ছুটির নির্দেশনার নামে গুজব ছড়ানো হয়েছে অথচ প্রধানমন্ত্রী এমন কোনো নির্দেশনায় দেননি। এছাড়া গুজব প্রতিরোধে মন্ত্রণালয় থেকে বিজ্ঞপ্তিও জারি করা হয়। এরপরও অনেক শিক্ষক বিভ্রান্ত ছড়িয়েছেন তাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে। তারা বলেন, এর অংশ হিসেবে অনেক শিক্ষককে জবাবদিহিতার আওতায় এনে শোকজ করা হয়েছে।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে, দিনাজপুর সদর উপজেলার একজন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকক, যিনি বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির নেতৃস্থানীয়, তাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাসের ঘটনায় সাময়িক বরখাস্তের করা হয়েছে।

রংপুরের একজন সহকারী শিক্ষিককে কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জ সদরের একজন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা…রানী সরকারকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে।

মাগুরা জেলার মোহম্মদপুর উপজেলার একটি প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষক এস এম….কে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। জানা গেছে ফেসবুকে অসত্য তথ্য পোস্ট করায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাগুরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

এছাড়া জয়পুরহাটের একজন শিক্ষককেও কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে।

এরআগে পবিত্র রমজান মাসে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা চেয়ে এবং ২০ রমজান পর্যন্ত প্রাথমিক স্কুল খোলা রাখার সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট দায়ের করে অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ। যা পরবর্তীতে খারিজ হয়ে যায়। তবে এখন পর্যন্ত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় তাদের আদেশই বহাল রেখেছেন।

এ বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কোনো কর্মকর্তায় মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আমিনুল ইসলাম বলেছেন, রমজানে প্রাথমিকে ছুটি বাড়ছেনা। গত দুই বছর প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় অনেক শিশু শিক্ষায় পিছিয়ে গেছে। এই শিখন ঘাটতি পূরণে রমজানে শ্রেণি কার্যক্রম চালু আছে।

উল্লেখ্য, আগামী ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত প্রাথমিকের ক্লাস চলবে। -ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন