কাজ নিয়ে আরব আমিরাতের প্রবাসীদের জন্য জরুরি আপডেট

আরব আমিরাত

আসসালামুয়ালাইকুম আরব আমিরাতের প্রবাসী ভাইয়েরা আশা করি আপনারা সকলে ভালো আছেন। প্রবাসীরা কাজের সংকটে চরম দূর্ভোগে দিন কাটছে প্রবাসীদের। প্রবাসীরা কাজ পাচ্ছেনা, মধ্যপ্রাচ্যে প্রবাসীরা কাজে সমস্যা আছে। এই খবর আমরা প্রায়ই শেয়ার করি, শুধুমাত্র দুবাই, সৌদি আরব এবং বাহাইনে কাজ থাকে না এমন না আমরা প্রায় বিভিন্ন দেশ থেকে খবর পাই প্রবাসীরা বেকার অবস্থায় রয়েছে।

এবার কাতার সম্পর্কে একটি খবর আপনাদের সাথে শেয়ার করব, কাতারে আমাদের অনেক প্রবাসী আছে যারা কিনা বর্তমানে খুব খারাপ অবস্থায় রয়েছে। অনেকেই ভাবতে থাকেন কাতারে যেতে পারলেই আমরা হইত খুব ভালো আয় রোজগার করতে পারব আরাম-আয়েশে জীবন-যাপন করতে পারব কিন্তু বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ কাতার হওয়া সত্বেও সেখানে আমাদের প্রবাসীরা ভালো নেই। সেখানে প্রায় চার লাখেরও অধিক বাংলাদেশী বসবাস করে, শ্রমিকরা জানান নানা দুর্ভোগের কথা।

কাতারে এসে প্রত্যাশিত সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিতর মধ্যেই অনেকে আবার ফ্রি ভিসার শ্রমিক রয়েছেন আর এইসব প্রবাসী কর্মীরা জানিয়েছে প্রায় তিন চার মাস ধরে তারা কাতারে অবস্থান করছে। কেউ 4 লাখ বা কেউ 5 লাখ টাকা খরচ করে কাতারে এসেছে কিন্তু প্রত্যাশা পূরণ হয়নি তাদের, কারো কারো এখনো চাকরি হয়নি কারো চাকরি হলেও মিলছেনা যথাযথ বেতন। কাউকে আবার চাকরি দিয়েও এক মাস পর বিনা বেতনে বের করে দেয়া হচ্ছে, কোম্পানিগুলোর সাথে যোগাযোগ করলেই কেউ আশ্বাস দেই কেউ আবার ফোনই ধরেনা।

সুমন নামে এক প্রবাসী বলেন পরিচিত এক ভাইয়ের মাধ্যমে আমরা কাতার আসি আসার পর প্রথমে কাতারের দোহায় এক ভাইয়ের কাছে ছিলাম তখন দুই বেলা করে খাবার পেতাম, চাকরির কথা বললে আমাকে ধৈর্য ধরতে বলতো এভাবেই তিন মাস দশ দিন পার হয়ে গেলে তারা আমাকে এক বাসায় নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে নিয়োগকারীর প্রতিষ্ঠানের লোকজন 1000 রিয়াল বাংলাদেশি টাকায় 30 হাজার টাকা দিয়ে বলে এই টাকা দিয়ে চলতে হবে আর কোন টাকা পয়সা দেওয়া হবেনা।

READ MORE  রোজা নিয়ে আরব আমিরাত সরকার জানাল নতুন তথ্য

চাকরির কথা জানতে চাইলে কোনো জবাব পাওয়া যায়নি, আমি কী করবো কার সাথে যোগাযোগ করব কিছুই বুঝে উঠতে পারছিলাম না। আরেক প্রবাসী সুজন মিয়া বলেন আমি কাতারে এসেছি চার বছর এমন অবস্থা কখনো হয়নি, কাতার বিশ্বকাপের পর থেকে আমাদের এই অবস্থা কাজ নেই রুম ভাড়া দিতে পারি না খাবার খরচের টাকা নেই, এক প্রকার ধারদেনা করে চলতে হচ্ছে। তিনি আরো বলেন আমি যে রুমে থাকি সেই রুমে কারো কাজ নেই সবাই খুব বিপদে আছি।

দেশে চলে যাব গিয়েই বা কি করব বিমান টিকেট কাটবো সেই টাকাটাও নাই। ভুক্তভোগী প্রবাসীরা বলছে সাহায্যের জন্য তারা কাতারে বাংলাদেশ এম্বাসিতে যোগাযোগ করলে সেখান থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। 2022 সালে বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য মধ্যপ্রাচ্যর দেশ কাতার ব্যাপকভাবে অবকাঠামোর উন্নয়নকর্মসূচি গ্রহণ করে সে কর্মসূচিতে বাংলাদেশের শ্রমিকদের ব্যাপক ভূমিকা ছিলো।

2022 সালে বিশ্বকাপের আগে কাতারে প্রায় 4 লাখ বাংলাদেশি শ্রমিক কর্মরত ছিল,বর্তমানে কাতারে খুব একটা কাজ না থাকায় কর্মহীন এবং দিশেহারা হয়ে পড়েছে এইসব প্রবাসীরা। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে আমাদের প্রবাসীদের বর্তমান অবস্থা সত্যিকার অর্থেই ভালো না, কাতারের পাশাপাশি সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং সৌদি আরব প্রবাসীদের একি অবস্থা আর এই সকল প্রবাসীদের পাশে আমাদের দূতাবাসকে খুব দ্রুতই দাঁড়াতে হবে, এদেরকে দেশে এনে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে অথবা ট্রেনিং দিয়ে অন্য কোনো দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।