দুবাইয়ের বুর্জ খলিফার ভেতর যাদের বাড়ি তারা কেমন জীবন-যাপন করে

দুবাই

পুরো আরব আমিরাত ঘুরে যখন সম্পত্তি বিশেষজ্ঞ ডক্টর ইব্রাহিম বুর্জ খলিফার ভেতরে অবস্থিত নিজ বাড়িতে আসেন, তখন গাড়ি কোথায় পার্কিং করতে হবে বা কীভাবে গাড়ি পরিষ্কার করতে হবে— সে বিষয়টি নিয়ে তাকে ভাবতে হয় না। কারণ বুর্জ খলিফার যেসব স্টাফ বা প্রহরী রয়েছেন; তারাই গাড়ি পার্কিং থেকে ধোয়া সবই করে থাকেন।

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবনের বাসিন্দা ডক্টর ইব্রাহিমের কাছে এটি অন্যতম প্রিয় একটি জিনিস।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমসকে আরব আমিরাতের এ নাগরিক বলেছেন, ‘এটি ছোট বিষয় কিন্তু বড় ব্যবধান গড়ে দেয়। যখন আমি সকালে নামাজের জন্য বাইরে যাই এবং নিচে নামি; রিসিপশনে গাড়ি আমার জন্য প্রস্তুত থাকে, অপেক্ষা করে। যদি আমার কোনো বন্ধু আসে তাহলে আমি তাদের সঙ্গে ১২৩ তলার লাউঞ্জে গিয়ে দেখা করতে পারি। সত্যি বলতে আপনাকে কখনো এই ভবন ছাড়তে হবে না যদি আপনি চান। এটিএম বুথ থেকে জিম-সুপারমার্কেট, আপনার যা প্রয়োজন তার সবই বুর্জ খলিফায় আছে।’

২০১০ সালের ৪ জানুয়ারি বুর্জ খলিফার দ্বার খুলে দেওয়া হয়। যা বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন। এ বছর বুর্জ খলিফা তার ১৪তম বছর উদযাপন করছে। ভবনটি তৈরি করা হয়েছে এই অঞ্চলের ইসলামিক স্থাপত্যের দ্বারা। বর্তমানে এটি বিশ্বের স্থাপত্য শিল্পের একটি অসাধারণ নিদর্শন।

গত ১৪ বছরে বুর্জ খলিফা দুবাইয়ের প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। নিচে যে কৃত্রিম ঝরনা রয়েছে এটি ভবনটির অন্যতম একটি সুন্দর জিনিস। প্রতি বছর লাখ লাখ পর্যটক বুর্জ খলিফায় আসেন। প্রতি বছর ইংরেজি নতুন বছর উপলক্ষ্যে বুর্জ খলিফায় চোখ ধাঁধানো আতশবাজি ফোটানো হয়। এই আতশবাজি সামনের আসনে বসে দেখতে অনেক মানুষ কয়েক হাজার দিরহাম খরচ করেন।

বুর্জ খলিফায় পাঁচ বছর ধরে বাস করা ডক্টর ইব্রাহিম জানিয়েছেন, বুর্জ খলিফা নিয়ে তার অন্যতম পছন্দের বিষয় হলো এটি শহরের কেন্দ্রে অবস্থিত। তিনি বলেছেন, ‘যখনই বিদেশ থেকে আমার কোনো বন্ধু বা পরিবারের সদস্যরা আসেন; তাদের আমি দুবাই মলে আসতে বলি। এখনো সবাই সহজে আসতে পারেন। মাঝে মাঝে আমরা ১২৩ তলার লাউঞ্জে বসি এবং এটি উপভোগ করি।’

READ MORE  দুবাই গিয়ে ডিগবাজি দিলেন জায়েদ খান

এছাড়া নতুন বছরের আতশবাজিও অন্যতম পছন্দের বিষয় বলে জানিয়েছেন ডক্টর ইব্রাহিম। তিনি বলেছেন, ‘ডিসেম্বরে কিছু কাজে আমি লন্ডনে ছিলাম। কিন্তু আমি মাসের শেষে দুবাই ফিরে আসি। বুর্জ খলিফার আতশবাজি মিস করার কোনো উপায় আমার নেই। বিশ্বের যে কোনো কিছুর জন্য হলেও।’

সেলিম মুপেন নামে এক ভারতীয় প্রবাসীর সঙ্গে কথা বলে সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমস। তিনি জানিয়েছেন, বুর্জ খলিফার সবচেয়ে বড় বিষয় হলো এখানকার নিরাপত্তা খুবই কঠিন। ভবনে ঢোকার অনুমতি নেই এমন কোনো ব্যক্তি এখানে কখনো প্রবেশ করতে পারেন না। তার মতো যারা প্রায়ই বিভিন্ন কাজে বিদেশ যান; তাদের জন্য বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কয়েকদিন আগে ৮৫ তলা থেকে ৪৭ তলায় চলে এসেছেন সেলিম। কারণ উপরের তুলনায় নিচ তলা থেকে বুর্জ খলিফার ঝরনার সৌন্দর্য্য বেশি উপভোগ করা যায়।

এছাড়া যখন ভারত থেকে তার পরিবারের সদস্যরা আসেন এবং তাদের তিনি বুর্জ খলিফা ঘুরে দেখাতে পারেন; এ বিষয়টি সেলিমের খুব ভালো লাগে।

সূত্র: খালিজ টাইমস