৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, মঙ্গলবার, ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শীতকালীন ছুটি পূনঃনির্ধারণ

প্রাথমিকের শীতকালীন অবকাশ কী ১৯ না ২৩ ডিসেম্বর?

দৈনিক বিদ্যালয় ডেস্ক : প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের জন্য ছুটির তালিকা প্রণয়ন করে তা অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে পাবলিশ করেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর বা ডিপিই। সেই প্রকাশিত ছুটির তালিকা দেখে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণ প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ছুটি প্রদান করে থাকেন বা ছুটি প্রদান করেছেন এবছর ২০২১ সনে ও। এবছরে ও অধিদপ্তর ঘোষিত তালিকা ও প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী অনেক স্কুলে ছুটি ঘোষণা করা ও হয়ে গেছে।

একইভাবে হাইস্কুল ও কলেজেও একইভাবে ছুটি প্রদান করা হয়। বিধান অনুযায়ী প্রণয়কৃত ছুটি বাড়ানো বা কমানো অথবা সংশোধন করার ক্ষমতা একমাত্র প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের হাতে।

এছাড়া বিধান অনুযায়ী ছুটি বাড়িয়ে অথবা কমিয়ে এই তালিকা সংশোধন করা হলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর অবশ্যই এবিষয়ে পরিপত্র জারি করবেন বা চিঠি ইস্যু করবে। কিন্তু ছুটি বাড়ানো কমানো নিয়ে এখন পর্যন্ত প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর-ডিপিই যেহেতু এ বিষয়ে কোন চিঠি ইস্যু করেননি। সেজন্য আগামী ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শীতকালীন অবকাশ শুরু হতে যাচ্ছে।

এবিষয়ে বিশেষজ্ঞদের অভিমত হল বরং অধিদপ্তরের লিখিত আদেশ ছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো খোলা রাখলে সেটা হবে সরকারি আদেশের লংঘন। কোন কোন জেলা/উপজেলার কর্মকর্তার মেসেন্জার/হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেজের মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কখনো খোলা বা বন্ধ করা যায়না।

এখানে উল্লেখ্য যে, প্রাথমিকের জন্য Blended class Routine অনুযায়ী ক্লাস শেষ করার পর ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। যার সূত্র সমুহ হল : বিভাগীয় উপপরিচালকবৃন্দ।

সর্বশেষ আপডেট: এই নিউজ লেখা কালীন সময়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপসচিব, নাজমা শেখ কর্তৃক এক পরিপত্র জারি করে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছুটি পূণঃনির্ধারণ করা হয়েছে।

এবিষয়ক স্মারক নম্বর: ৩৮,০০,০৩৩,০০৪,৪৬,০০,২০১০/২০ এ ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে জানানো হয়েছে যে,

“তার কার্যালয়ের সূত্ৰোস্থ পন্যের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে যিশু খ্রিষ্টের জন্মদিন (বড় দিন) ও শীতকালীন অবকাশ বর্ষপঞ্জিতে উল্লেখিত ১৯ হতে ২৯ ডিসেম্বর ২০১১
তারিখের পরিবর্তে ২৪ ডিসেম্বর হতে ২৯ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখ পর্যন্ত পুনঃনির্ধারণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরােধ করা হলাে।”

যদিও ছুটি পরিপত্রের মাধ্যমে ছুটি কমিয়ে ছুটি পূণরায় নির্ধারণ করা হয়েছে। তবুও এই ছুটি কর্ত্নে মারাত্মক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে।

এবিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষকরা বলছেন আমরা এমনিতেই সারা সপ্তাহ শিখন-শেখানো কাজে ব্যস্ত থাকি। অন্যান্য সরকারি চাকুরীজীবীদের মত সপ্তাহে ২দিন ছুটি পাই না। আর শীত কালীন অবকাশ যদি বলা হয়, তাহলে সেই অবকাশের ছুটি ও বিধান হল,

অবকাশ বিভাগের কর্মচারীদের ছুটি:

“অবকাশ বিভাগে স্থায়ীভাবে কর্মরত কোন সরকারি কর্মচারী কর্তব্য সম্পাদন বিষয়ে যে বৎসর অবকাশ ভোগ করবেন, সে বৎসর পূর্ণ গড় বেতনে কোন ছুটি পাবেন না। এরূপ সরকারি কর্মচারী যদি কোন বৎসর সমগ্র অবকাশ ভোগ করতে না পারেন তবে তিনি সুপিরিয়র সার্ভিসের কর্মচারী হলে সমগ্র অবকাশের যতভাগ ভোগ করতে পারেন নি, ত্রিশ দিনের ততভাগ এবং চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী হলে ১৫ দিনের ততভাগ এ অনুপাতে পূর্ণগড় বেতনে ছুটি পাবেন। এরূপ সরকারি কর্মচারী কোন বৎসর যদি অবকাশ ভোগ না করেন, তা হলে অবকাশ নেই এমন বিভাগের মত ঐ বৎসরের জন্য তাকে পূর্ণগড় বেতনে ছুটি প্রদান করা হবে। এরূপ সরকারি কর্মচারীগণ অন্যান্য সরকারি কর্মচারীর মত অর্ধ গড় বেতনে ছুটি অর্জন ও ভোগ করতে পারবেন।” -ডিবি আর আর।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুকে লাইক দিন